চেন্নাইয়ে ভারতের বিশাল জয়, রেকর্ডবুকে তোলপাড়

লোকসমাজ ডেস্ক॥ চেন্নাইয়ের চিপাক স্টেডিয়ামে ঘুরে দাঁড়িয়েছে ভারত। চার ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টে সফরকারী ইংল্যান্ডের কাছে নাকানিচুবানি খাওয়ার পর একই মাঠে দ্বিতীয় ম্যাচে ৩১৭ রানের বিশাল ব্যবধানে জয় লাভ করেছে বিরাট কোহলির দল। যার ফলে সিরিজে এখন বিরাজ করছে ১-১ সমতা। বাকি দুই ম্যাচ খেলতে দুই দল যাবে আহমেদাবাদে। যেখানে নবনির্মিত স্টেডিয়ামে হবে শেষ দুই ম্যাচ। তবে এর আগে চেন্নাই টেস্ট জেতার মাধ্যমে রেকর্ডবুকের অনেক পাতা ওলটপালট করেছে ভারত। ভারতের দলীয় রেকর্ড বাদে অনেক ব্যক্তিগত রেকর্ডও হয়েছে চেন্নাই টেস্টে।
সেসব রেকর্ড নিয়েই সাজানো এই প্রতিবেদন:
রানের দিক দিয়ে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ভারতের সবচেয়ে বড় জয়টি এসেছে চেন্নাইয়ে। যেখানে তারা জিতেছে ৩১৭ রানে। ইংলিশদের বিপক্ষে আগের সবচেয়ে বড় জয়টি ছিল ১৯৮৬ সালের লিডস টেস্টে, ২৭৯ রানে। এছাড়া ইংল্যান্ডকে ছয়বার ইনিংস ব্যবধানে হারিয়েছে ভারত। চেন্নাইয়ের চিপাকে অবস্থিত এই এমএ চিদাম্বরাম স্টেডিয়ামে এ নিয়ে ১৫তম টেস্ট জিতল ভারত। যা কি না নির্দিষ্ট কোনো ভেন্যুতে ভারতের সর্বোচ্চ জয়। তারা ১৩টি করে টেস্ট জিতেছে দিল্লি ও কলকাতায়। ম্যাচে ব্যাটে-বলে উজ্জ্বল ছিলেন অফস্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিন। ব্যাট হাতে সেঞ্চুরির পাশাপাশি বল হাতেও ৮ উইকেট নিয়েছেন তিনি। ভারতের হয়ে টেস্ট ক্রিকেটে এ নিয়ে দুইবার একই ম্যাচে সেঞ্চুরি ও ৮ উইকেট নিলেন অশ্বিন। আর কোনো ভারতীয় ক্রিকেটারের একবারও নেই এ কীর্তি। অল্পের জন্য ম্যাচে সেঞ্চুরি ও দশ উইকেটের বিরল রেকর্ড হয়নি অশ্বিনের। এর মূল ‘দায়’ বলা চলে তারই সতীর্থ স্পিনার অক্ষর প্যাটেলের। যিনি নিজের অভিষেকেই নিয়েছেন পাঁচ উইকেট। ভারতের নবম বোলার, ষষ্ঠ স্পিনার ও দ্বিতীয় বাঁহাতি স্পিনার হিসেবে অভিষেকে ফাইফার নিয়েছেন অক্ষর।
চেন্নাইয়ের জয়টি অধিনায়ক বিরাট কোহলির নেতৃত্বে ঘরের মাঠে ভারতের ২১তম জয়। এ রেকর্ডে কোহলি পাশে বসেছেন মহেন্দ্র সিং ধোনির। সাবেক অধিনায়কের অধীনেও ঘরের মাঠে ২১ টেস্ট জিতেছিল ভারত। সবমিলিয়ে কোহলির নেতৃত্বে মোট ৩৪ টেস্ট জিতেছে ভারত, ২৭ টেস্টে জয় নিয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ধোনি। বিশাল ব্যবধানে হেরে যাওয়া ম্যাচটিতে দুই ইনিংস মিলে ইংল্যান্ড করেছে ২৯৮ রান। ভারতের বিপক্ষে ২০ উইকেট হারানো ম্যাচে এটি তাদের তৃতীয় সর্বনিম্ন সংগ্রহ। এ তালিকায় সবার ওপরে ১৯৮৬ সালের হেডিংলি টেস্ট। দুই ইনিংস মিলিয়ে সেবার তারা করেছিল ২৩০ (১০২ ও ১২৮) রান। প্রথম ম্যাচে যেখানে ২২৭ রানে হেরেছিল ভারত, সেখানে দ্বিতীয়টি তারা জিতল ৩১৭ রানের বড় ব্যবধানে। টেস্ট ইতিহাসে প্রথম ম্যাচ ২০০ রানের বেশি ব্যবধানের হারের পর দ্বিতীয়টিতে এত বড় ব্যবধানে জেতার চতুর্থ নজির এটি। ২০১৭ সালে ইংল্যান্ডের মাটিতে দক্ষিণ আফ্রিকা, ২০১৪ সালে ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দক্ষিণ আফ্রিকা ও ১৯৫০ সালে ইংল্যান্ডে ওয়েস্ট ইন্ডিজ পেয়েছিল এমন জয়। বিশাল ব্যবধানে হেরে যাওয়া ম্যাচের শেষদিকে ইংল্যান্ডের পক্ষে ঝড় তুলেছিলেন মঈন আলি। ম্যাচের পরাজয় যখন নিশ্চিত তখন মঈনের ব্যাট থেকে আসে ১৮ বলে ৪৩ রানের ইনিংস, স্ট্রাইকরেট ২৩৮.৯। টেস্ট ক্রিকেটে অন্তত ১৫ বলের ইনিংসে এটি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ স্ট্রাইকরেট। ২০১১ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১৭ বলে ৪৩ করেছিলেন বাংলাদেশের আব্দুর রাজ্জাক।

ভাগ