যশোর জেনারেল হাসপাতালে ৫ শয্যার বিপরীতে ৭০ ডায়রিয়া রোগী প্রতিদিন

0

বিএম আসাদ ॥ যশোরে ডায়রিয়া পরিস্থিতির ফের অবনতি হয়েছে। যশোর জেনারেল হাসপাতালে প্রতিদিন নতুন নতুন রোগী ভর্তি হচ্ছেন। রোগীর ভিড়ে সংক্রামক ওয়ার্ডে ঠাঁই না হওয়ায় বাইরে করিডোরে শুয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন অধিকাংশ রোগী। এ ওয়ার্ডে মোট ৫টি শয্যার বিপরীতে প্রতিদিন ৬০ থেকে ৭০ জন রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন। হাসপাতালের পরিসংখ্যান থেকে জানা গেছে, চলতি এপ্রিল মাস জুড়ে যশোরে ডায়রিয়া পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে। কখনো কমেছে, কখনো বৃদ্ধি পেয়েছে। উপজেলা পর্যায়ে এ পরিস্থিতি কম থাকলেও যশোর পৌরসভা ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় আক্রান্তের সংখ্যা বেশি।
যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে, গতকাল সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘন্টায় ৩৫ জন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন। তাদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আবার সুস্থতা ফিরে পাওয়ায় এ সময়ের মধ্যে ৪০ জনকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে। প্রতিদিন ভর্তি থাকছেন ৬০ থেকে ৭৫ জন। ছাড়পত্র দেয়ার পর সংক্রামক ওয়ার্ডে দিনের প্রথম পর্বে রোগী থাকছেন ৫০ থেকে ৬০ জন। রাত হতে না হতেই ভর্তি রোগীর সংখ্যা হচ্ছে ৭০ হতে ৭৫ জন। ওয়ার্ডে প্রতিটি বেডের বিপরীতে ১৪ থেকে ১৫ জন রোগী থাকায় তারা ওয়ার্ডের মেঝে, করিডোরে ও চলাচলের পথে বিছানা করে চিকিৎসা নিচ্ছেন। যেখানে ফ্যান পর্যন্ত নেই। চরম দুর্ভোগের মধ্যে চিকিৎসা নিতে হচ্ছে রোগীদের।
হাসপাতালের সংক্রামক ওয়ার্ডে চিকিৎসা দেন যশোর মেডিকেল কলেজের মেডিসিন বিভাগের প্রধান সহকারী অধ্যাপক ডা. গৌতম কুমার আচার্য্য। তিনি লোকসমাজকে বলেন, ডায়রিয়া সাধারণত পঁচাবাসি, ভেজাল খাবার ও দুষিত পানি থেকে উৎপত্তি হয়। আবার প্রচন্ড গরমে লোকজন আক্রান্ত হয় ডায়রিয়ায়। ব্যাকটেরিয়া এবং রোটা ভাইরাস নামক জীবাণুর প্রভাব বেড়ে যাওয়ায় ডায়রিয়া বৃদ্ধি পায়। এ পরিস্থিতিতে সকলকে সতর্ক থাকা এবং রোদ্রে না গিয়ে সকলকে ছায়ায় থাকার জন্য ওই চিকিৎসক পরামর্শ দিয়েছেন।

Lab Scan