নজিরবিহীন ‘২০২০’ এর পরেও বিক্রি বাড়ছে জুমের

লোকসমাজ ডেস্ক॥ জুম প্রধান এরিক ইউয়ান বলছেন, মহামারীতে শুরু হওয়া বাসা-থেকে-কাজ অনুশীলন বন্ধ হচ্ছে না। মহামারীতে গত বছর জুমের ব্যবসা ফুলে-ফেঁপে উঠেছিল। এ বছরও ব্যবসার বৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে বলে আশা করছে তারা।
ভিডিও কনফারেন্সিং সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, এ বছর বিক্রি ৪০ শতাংশেরও বেশি হবে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে। সবমিলিয়ে বিক্রি গিয়ে দাঁড়াবে তিনশ’ ৭০ কোটি ডলারে।
অনুমান জানানোর পর প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার দর ছয় শতাংশেরও বেশি বেড়েছে। টিকা নেওয়া এবং সামাজিক দূরত্বের নিষেধাজ্ঞা উঠে গেলে প্রতিষ্ঠানটি কীভাবে সেবা দেওয়া অব্যাহত রাখবে, সেটি জানার অপেক্ষায় ছিলেন ব্যবহারকারীরা।
গত বছরের মতো একই গতিতে বৃদ্ধি হবে না বলেও উল্লেখ করেছে জুম। তবে, তারা জানিয়েছে, ব্যবসা দৃঢ় থাকবে। ২০২০ সালের শেষ তিন মাস প্রতিষ্ঠানের বিক্রি ২০১৯ সালের তিন মাসের তুলনায় ৩৭০ শতাংশ বেড়ে ৮৮ হাজার দুইশ’ ৫০ কোটি ডলারে এসে দাঁড়িয়েছে।
“চতুর্থ প্রান্তিক জুমের নজিরবিহীন একটি বছরের দৃঢ় সমাপ্তিকে চিহ্নিত করলো।” – বলেছেন প্রতিষ্ঠানটির প্রধান এরিক ইউয়ান। তিনি আরও বলেন, “বিশ্ব মহামারী থেকে উঠে দাঁড়াচ্ছে, আমাদের কাজ মাত্র শুরু হয়েছে।”
গোটা বিশ্বে অসংখ্য প্রতিষ্ঠান মহামারীর সময়ে হুট করে বাসা-থেকে-কাজ কাঠামোতে কর্মকাণ্ড পরিচালনা শুরু করে। এতে জুমের চাহিদা বেড়েছিল রাতারাতি। সবার কাছে পরিচিত হয়ে উঠে সেবাটি।
বর্তমানে কিছু প্রতিষ্ঠান নিজ কার্যালয়ে কর্মী ফিরিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করলেও, অনেকেই মনে করছেন মহামারীতে উদ্ভূত বাসা-থেকে-কাজ কাঠামো আরও কিছুটা সময় থাকবে।

ভাগ