বিল পরিশোধের পরও সংযোগ কেটে রাইজার খুলে নিলো তিতাস

লোকসমাজ ডেস্ক॥ মোহাম্মদপুরের জাপান গার্ডেন সিটির একটি বহুতল ভবনের ৯০টি ফ্ল্যাটের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে ১৮টি রাইজার খুলে নিয়ে গেছে তিতাস কর্তৃপক্ষ। গত চারদিন ধরেই এই ভবনে বাস করা সাড়ে চারশ মানুষ গ্যাস ছাড়া রয়েছেন। সাপ্তাহিক ছুটির কারণে তাদের অপেক্ষা করতে হবে আরও একদিন। তিতাস জানিয়েছে, বিল বকেয় থাকাতেই সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে। পুনরায় সংযোগ নিতে আবার ফি দিতে হবে ভবন কর্তৃপক্ষকে।
সরেজমিনে দেখা গেছে, জাপান গার্ডেন সিটির ১১ নম্বর ভবনটির নিচে পশ্চিম দিকে তিতাসের গ্যাংস সংযোগ পাইপগুলো রয়েছে। তবে এসব পাইপে রাইজার নেই। ১৭ নভেম্বর দুপুরে তিতাসের লোকজন রাইজারগুলো খুলে নিয়ে যায়। ১১ নম্বর ভবনের ফ্ল্যাট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. কাজল আনোয়ার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমাদের ভবনের ৯০টি ফ্ল্যাটের গ্যাস বিল ৮ নভেম্বর পরিশোধ করা হয়েছে। তারপরও তিতাস রাইজার খুলে নিয়ে গেছে। আমরা কিছু বলার আগেই তারা রাইজার নিয়ে চলে যায়। তিতাসের আরেকটি টিমের সঙ্গে কথা বলে জানতে পেরেছি, মিরপুর থেকে আসা একটি টিম রাইজারগুলো নিয়ে গেছে। রাইজার লাগিয়ে দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে দ্বিতীয় টিমটিও চলে যায়। এরপর থেকে কারওরই খবর নেই। তিতাসের ঊর্ধ্বতনদের বিষয়টি জানিয়েছি।’ কেন্দ্রীয় জাপান গার্ডেন ফ্ল্যাট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সাহিদুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমাদের সকল ইউটিলিটি বিল জাপান গার্ডেন ডেভেলপার কোম্পানির কাছে দেওয়া হয়। তারা বিদ্যুৎ, গ্যাস ও পানির বিল জমা দেয়। খোঁজ নিয়ে দেখেছি ১১ নম্বর ভবনের গ্যাস বিল বকেয়া নেই। তারপরও লাইন কাটা হয়েছে। কোনও নোটিশও দেয়নি তিতাস কর্তৃপক্ষ।’
জাপান গার্ডেন সিটির ১২৬০টি ফ্ল্যাটে প্রতিমাসে ১২ লাখ ২৮ হাজার ৫০০ টাকা গ্যাস বিল আসে। ডেভেলপার কর্তৃপক্ষ ফ্ল্যাট মালিকদের কাছ থেকে বিল নিয়ে জমা দেয়। ফ্ল্যাট মালিকদের অনেকে দেশের বাইরে থাকেন। কেউ কেউ বিল নিয়মিত পরিশোধ করেন না। তাই মাঝে মাঝে বকেয়া হয় বলে জানিয়েছেন ফ্ল্যাট মালিকরা। কিন্তু বিল পরিশোধ থাকা ভবনের সংযোগ কাটায় ক্ষুব্ধ তারা। জাপান গার্ডেন ফ্ল্যাট মালিক কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি আব্দুস সালাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘তিনদিন ধরে তিতাসের পেছনে দৌড়াচ্ছি। তাদের কোনও খোঁজ নেই। বৃহস্পতিবার বকেয়া বিল পরিশোধ হয়েছে বললেও সংযোগ পাওয়া যায়নি। শুক্র-শনিবারের দোহাই দিয়ে সংযোগ দিচ্ছে না। তাদের ফাইলের কাজ নাকি এখনও শেষ হয়নি।’ তার প্রশ্ন হলো, ‘রাইজারগুলো আমাদের টাকায় কেনা। সেগুলো কেন খুলে নিয়েছে?’ তিতাস কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, জাপান গার্ডেন সিটির তিন-চারশ গ্রাহকের বিল বকেয়া আছে। নিয়ম অনুযায়ীই বুধবার (১৭ নভেম্বর) সকালে গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। মো. কাজল আনোয়ার জানালেন, তিতাস বলছে, বিল পরিশোধ হলেও নিয়মানুযায়ী নতুন করে আবার ফি দিয়ে সংযোগ নিতে হবে। তিতাসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (রাজস্ব) মো. তোফাজ্জল হোসেন জানিয়েছে, ‘জাপান গার্ডেন সিটির বকেয়া বিল তারা বৃহস্পতিবার বুঝে পেয়েছেন। বিষয়টি তিতাসের বিপণন বিভাগকে জানানো হয়েছে।’

ভাগ