যশোরে দুর্নীতি মামলায় সাবেক রেকর্ড কিপার কারাগারে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যশোরে দুর্নীতির মামলায় সদর সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের সাবেক রেকর্ড কিপার আব্দুল হালিমকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। সোমবার রেজিস্ট্রি অফিসের ভলিউম পরীক্ষায় জালিয়াতির বিষয়টি ধরা পড়ায় সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো.ইখতিয়ারুল ইসলাম মল্লিক তার জামিন বাতিল করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। আব্দুল হালিম যশোর শহরতলীর শেখহাটির মৃত আলী আকবর মোল্লার ছেলে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দুর্নীতি দমন কমিশনকের (দুদক) পিপি আশরাফুল আলম বিপ্লব।
মামলার বিবরণে জানা গেছে, যশোর শহরের হাজী আব্দুল করিম সড়কের মৃত আহম্মদ আলী সরদারের ওয়ারেশদের সাথে বেজপাড়া পিয়ারী মোহন রোডের মৃত আবুল কাশেমের ওয়ারেশদের জমি সংক্রান্ত একটি দেওয়ানী মামলা চলছিল যুগ্ম জেলা জজ আদালতে। যার নম্বর-দেওয়ানী ৪৩/১৫। এ মামলায় একটি সার্টিফাইড দলিল সরবরাহ করা হয় আদালতে। এ দলিলটি জাল সন্দেহ হওয়ায় আহম্মদ আলী সরদারের ওয়ারেশদের পক্ষে সদরের কিসমত নওয়াপাড়ার সাজেদ জাহাঙ্গীর বাদী হয়ে দুর্নীতির অভিযোগ এনে জেলা ও দায়রা জজ আদালতে একটি মামলা করেন। মামলায় বেজপাড়া পিয়ারী মোহন রোডের মৃত আবুল কাশেমের চার ছেলে, সাব-রেজিস্টার, তৎকালীন রেকর্ড কিপার, নকলকারক ও পাঠক এবং নকলনবীশকে আসামি করা হয়। আদালতের আদেশে দুদক অভিযোগের তদন্ত করে। পরে দুদক আদালতে চার্জশিট জমা দেয়। চার্জশিটে মৃত আবুল কাশেমের ছেলে আবুল ফজল সিদ্দিক, সাবেক রেকর্ড কিপার আব্দুল হালিম, নকলনবীশ নার্গিস পারভীন ও নুরজাহানকে অভিযুক্ত করা হয়। কিন্তু তৎকালীন সাব রেজিস্টার মারা যাওয়ায় তাকে এবং অভিযোগ না পাওয়ায় মৃত আবুল কাশেমের অপর তিন ছেলেকে চার্জশিটে অব্যাহতি দেয়া হয়। মামলাটি বর্তমানে জেলা ও দায়রা জজ আদালতে বিচারকধীন আছে। সোমবার এ মামলার ধার্যদিনে আসামি আব্দুল হালিম হাজির ছিলেন। এ দিন সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের সরবরাহকৃত দলিলের ভলিউম পরীক্ষা করে দেখা হয়। এতে জালিয়াতির ঘটনা ধরা পড়ে। এ সময় বিচারক উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আসমি আব্দুল হালিমের জামিন বাতিল করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

ভাগ