সারাদেশে ৭১ মামলায় গ্রেফতার ৪৫০

লোকসমাজ ডেস্ক॥ সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন স্থানে পূজামণ্ডপ কেন্দ্রিক অপ্রীতিকর ঘটনায় এ পর্যন্ত ৭১টি মামলা হয়েছে। এসব ঘটনায় জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার করা হয়েছে ৪৫০ জনকে। সোমবার রাতে পুলিশ সদরদপ্তরের মিডিয়া শাখা থেকে এই তথ্য জানানো হয়েছে। সূত্র বলছে, সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন স্থানে পূজামণ্ডপ কেন্দ্রিক অপ্রীতিকর ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৭১টি মামলা হয়েছে। আরও কিছু মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এছাড়া এসব ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ৪৫০ জনকে আটক করা হয়েছে। আটকের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানিয়েছে সদরদপ্তর। তারা বলছে, অপরাধীদের গ্রেপ্তারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
সোমবার (১৮ অক্টোবর) রাতে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন পুলিশ সদরদপ্তরের এআইজি (মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস) মো. কামরুজ্জামান। তিনি বলেন, সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন স্থানে পূজামণ্ডপ কেন্দ্রিক অপ্রীতিকর ঘটনায় এ পর্যন্ত ৭১টি মামলা হয়েছে। আরও কিছু মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এসব ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ৪৫০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। অপরাধীদের গ্রেফতারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তিনি বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে দেশে বিদ্যমান সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে কিছু ব্যক্তি কিংবা গোষ্ঠী উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গুজব ও বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির অপচেষ্টা করছে। আবার অনেক ক্ষেত্রে চক্রান্তকারীরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের পোস্ট কিংবা বিভিন্ন তথ্য বিকৃত বা অপব্যাখ্যা করে তা বিভিন্ন মাধ্যমে ছড়িয়ে সংঘাতমূলক পরিস্থিতি সৃষ্টির অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ পুলিশের সংশ্লিষ্ট ইউনিটগুলো বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গুজব ও বিভ্রান্তি সৃষ্টিকারীদের মনিটর করছে এবং তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ অব্যাহত রয়েছে। এআইজি কামরুজ্জামান আরও বলেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ যেকোনো মাধ্যমে গুজব ও বিভ্রান্তি না ছড়াতে এবং যাচাই ছাড়া সংবাদে বিশ্বাস না করতে সবার প্রতি বিশেষ অনুরোধ জানিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ। যেকোনো অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি মোকাবিলায় জনগণের সার্বিক সহযোগিতাও প্রত্যাশা করছে বাংলাদেশ পুলিশ।
এদিকে দেশে সাম্প্রদায়িক হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় জড়িতদের হুঁশিয়ারি দিয়ে সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, যারা ষড়যন্ত্র করছেন, ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করছেন তারা আর আগাবেন না। আমরা এগুলোকে চিহ্নিত করে অবশ্যই শাস্তির ব্যবস্থা করবো এবং তাদেরকে জনগণের সম্মুখে উপস্থিত করবো। মন্ত্রী বলেন, যারা এ সমস্ত ষড়যন্ত্র করেন তারা এ পথ থেকে ফিরে আসুন। না হলে আপনাদের সম্মুখে বিপদ হাতছানি দিয়ে ডাকছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, হিন্দু-মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব হাজার বছরের কৃষ্টি। সব উৎসবই আমরা হিন্দু, মুসলমান, বৌদ্ধ ও খ্রিষ্টান ধর্মের লোকেরা একসঙ্গে পালন করি। কিন্তু একের পর এক উসকানি দিয়ে, ধর্মীয় যে বিশ্বাস সেখানে আঘাত হেনে দেশে বিশৃঙ্খলার একটা প্রয়াস আমরা দেখতে পাচ্ছি। আমরা কুমিল্লার ঘটনা দেখলাম, নোয়াখালীর ঘটনা দেখেছি এবং গতকাল রংপুরের ঘটনাও দেখেছি। শুরুটা হয়েছিল রামু থেকে, রামুর পর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দেখেছি। এছাড়া আমরা জঙ্গির উত্থান ও সন্ত্রাসের উত্থান দেখেছি। এসব কিছুর একটাই টার্গেট ছিল- সেটা হলো কীভাবে এই বাংলাদেশকে বিপদে ফেলা যায়, বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে কীভাবে ছিনিমিনি খেলা যায় তাও আমরা দেখতে পেয়েছি।

ভাগ