শিথিলের শুরুতেই খুলনার দোকানপাট-গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি উধাও

খুলনা প্রতিনিধি॥ খুলনায় টানা ২২ দিন পর শিথিল হয়েছে কঠোর লকডাউন। খুলেছে দোকানপাট, বাজার, শপিং মল। চলছে গণপরিবহন। কিন্তু শুরুতেই খুলনার সর্বত্র স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ না করার প্রবণতা লক্ষ করা গেছে। সামাজিক দূরত্বটুকুও পালন করতে দেখা যায়নি।ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে দোকানপাট, বিপণিকেন্দ্রগুলোতে চলছে বেচাকেনা। খুলনা মহানগরীর ডাকবাংলা, পিকচার প্যালেস মোড়, বড় বাজার, দৌলতপুর কেডিএ অ্যাভিনিউ, মজিদ সরণি, শিববাড়ি, নিউ মার্কেট, কেসিসি মার্কেটসহ সব বিপণিকেন্দ্র ও হোটেল-রেস্তোরাঁগুলো খোলা হয়েছে।বিভিন্ন জায়গায় বেচাকেনার সময় স্বাস্থ্যবিধি মানতে দেখা যায়নি।
হানিফ, ঈগল, বনফুল, টুঙ্গিপাড়াসহ বেশ কয়েকটি বাস গত রাতেই ঢাকার উদ্দেশে খুলনা ছেড়ে গেছে। তাতে যাত্রীদের যথেষ্ট উপস্থিতি দেখা গেছে। সকাল থেকেও যাত্রী নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে গেছে বেশ কয়েকটি পরিবহন। তবে, প্রতি দুটি ছিটে একজন যাত্রী নেওয়ার সরকারি ঘোষণা থাকলেও পাশাপাশি বসানো হয় যাত্রীদের। ঈগল পরিবহনের ব্যবস্থাপক জাহাঙ্গীর আলম খন্দকার দারা জানান, যাত্রীদের সংখ্যা বেশি হওয়ার কারণে মাস্ক ব্যবহারে জোর দেওয়া হয়েছে। আর পাশাপাশি কিছু সিটে যাত্রী নিতে হয়েছে।
সোনাডাঙ্গা নিবাসী আবু বেকার বলেন, ‘ঈগল পরিবহনের কাউন্টারে স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়টি বলা হলেও তারা তা মানেননি। পাশাপশি সিটে যাত্রী নিয়েছেন।’চালক আবদুল জলিল জানান, গাড়িতে ওঠার আগে যাত্রীদের বলা হয়েছে, মাস্ক ছাড়া কেউ গাড়িতে উঠবেন না। কিন্তু তারা তা মানছেন না।
শামিম হোটেল অ্যান্ড রেস্টুরেন্টের কর্ণধার শুভ জানান, লকডাউনের মধ্যে পার্সেল বিক্রি করে হোটেল পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করতে সামান্য দেরি হওয়াতেও জরিমানার সম্মুখীন হতে হয়েছে। লোকসান কাটিয়ে উঠতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কেনাবেচা শুরু করা হয়েছে।

ভাগ