বাকিতে পেট্রোল না দেওয়ায় বেনাপোলে বিএনপি নেতার পেট্রোল পাম্প ভাঙচুর ও লুটপাট করেছে ছাত্রলীগ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা, আটক হয়নি কেউ

শার্শা(যশোর)সংবাদদাতা॥ যশোরের বেনাপোলে বাকিতে পেট্রোল না দেওয়ায় মিলন ব্রাদার্সের পেট্রোল পাম্প ভাঙচুর ও লুটপাট করেছে পৌর ছাত্রলীগ নেতা কর্মীরা। এ ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনায় ৬ ছাত্রলীগ নেতা কর্মীকে অভিযুক্ত করে পাম্পের মালিক শার্শা থানা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ মাসুদুর রহমান মিলন পোর্ট থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগের একদিন পার হলেও এখনও আটক হয়নি কেউ। ওসি জানিয়েছেন, তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
অভিযোগে বলা হয়, গত বৃহস্পতিবার রাতে শার্শা উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন রাসেলসহ আরো ৫/৬ জন বেনাপোল মিলন ব্রাদার্সের পেট্রোল পাম্পে গিয়ে বাকিতে পেট্রোল চায়। পাম্পের ম্যানেজার মালিকের অনুমতি ছাড়া বাকি দিতে অস্বীকার করলে রাসেলের নেতৃত্বে পাম্পে ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাট করে নগদ ৪০ হাজার নিয়ে যায়। এ সময় সন্ত্রাসীরা মিলনচেয়ারম্যানের জীপ গাড়িও ভাঙচুর করে। এ সময় ভাঙচুর করে পাম্পের লক্ষাধিক টাকার আসবাবপত্র।
এ ঘটনায় পাম্পের মালিক থানায় অভিযোগ করলে তাকে হত্যার হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে বেনাপোল এলাকায় হৈ চৈ শুরু হলে ব্যবসায়ীদের মাঝে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনার রাত সাড়ে এগারোটায় পাম্পের মালিক রাসেলসহ আরো ৬ জনকে অভিযুক্ত করে মামলা করেন বেনাপোল পোর্ট থানায়।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে পাম্পের মালিক মাসুদুর রহমান মিলন জানান, পেট্রোল বাকি না দেয়ায় রাতে ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা তার পেট্রোল পাম্প ভাঙচুর করেছে। তিনি আরও জানান, তারা স্টাফদের মারধোর করে নগদ ৪০ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে চলে যায়। এ ঘটনায় বেনাপোল পোর্ট থানায় ৬ জনকে অভিযুক্ত করে একটি অভিযোগ দায়ের করেছি। তবে ঘটনার ১দিন পার হলেও পুলিশ কোনো অপরাধীকে আটক করতে পারেনি।
বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি মামুন খান জানান, মিলন ব্রাদার্স নামে একটি পেট্রোল পাম্পের মালিক মাসুদুর রহমান মিলন ৬ জনকে অভিযুক্ত করে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন থানায়। বিষয়টি তদন্ত করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ভাগ