করোনা টিকার ২য় ডোজের ঘাটতি যশোরে নতুন চালান না এলে বঞ্চিত হতে পারেন প্রায় ৩৮ হাজার জন

বিএম আসাদ ॥ যশোরে করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ শেষ হওয়ার পথে। যে পরিমাণ ডোজ সিভিল সার্জন অফিসের স্টোরে মজুদ আছে তা আগামী ঈদ-উল-ঠিতর পর্যন্ত দেয়া যাবে। নতুন করে টিকার চালান সময় মতো না আসলে প্রায় ৩৮ হাজার ১ম ডোজ গ্রহণ করা ২য় ডোজ গ্রহণে সংকটে পড়বে করোনা টিকার সংকট দেখা দেবে। তবে সিভিল সার্জন জানিয়েছেন, আরও টিকা পাওয়া যাবে। যশোর সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানিয়েছে যশোরে যারা করোনা টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছিলেন ১ লাখ ১৯ হাজার ২শ’ ৭৩ জন। তাদের ভেতর গতকাল (বৃহস্পতিবার) একদিনে ২ হাজার ১৭ জন ২য় ডোজ গ্রহণ কেেছন। টিকার ডোজ গ্রহণকারীদের ভেতর ছিলেন ১ হাজার ২শ’ ৮৮ জন পুরুষ ও ৭শ’ ২৯ জন মহিলা। এ নিয়ে ৪৭ হাজার ৫শ’ ৭১ জন পুরুষ ও ২৬ হাজার ১শ’ ৮৪ জন মহিলা মিলে মোট ৭৩ হাজার ৭শ’ ৫৫ জন করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণ করেছেন। এদিকে, এ পর্যন্ত যশোরে করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ এসেছে ৮২ হাজার ডোজ। প্রথম চালানে ৭৮ হাজার ডোজ এবং দ্বিতীয় চালানে আসে ৪ হাজার ডোজ। সর্বমোট ৮২ হাজার ডোজের মধ্যে ইতোমধ্যে ৭৩ হাজার ৭শ’ ৫৫ ডোজ দেয়া হয়ে গেছে। এখন সিভিল সার্জন অফিসের স্টোরে মজুদ আছে মাত্র ৮ হাজার ২শ’ ৪৫ ডোজ। প্রতিদিন গড়ে ২ হাজার ডোজ দেয়া হলেও আগামী ৪ দিন থেকে ৫ দিন চলবে এ টিকার মজুদ। ফলে ঈদ-উল-ফিতরের আগেরদিন পর্যন্ত করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ দেয়া যাবে। ২য় ডোজের মাত্র ৮২ হাজার ডোজ আসায় ৩৭ হাজার ৯শ’ ৯০ ডোজ টিকা ঘটতি রয়েছে। অর্থাৎ মজুদ ডোজের পরও আরও ৩৭ হাজার ৯শ’ ৯০ জনকে দ্বিতীয় ডোজ দিতে হবে যা এখনো এসে পৌঁছেনি।

ভাগ