‘আমরা কি করতে পারি তার ঝলক দেখাতে পেরেছি’

লোকসমাজ ডেস্ক॥ডিএল ম্যাথডে ১৬ ওভারে টার্গেট ১৭১। ওভার পিছু প্রায় পৌনে ১১ রান (১০.৬৮)। কাজটা সহজ নয়। সেটাও আবার তিন মূল ব্যাটিং স্তম্ভ তামিম, সাকিব আর মুশফিক ছাড়া।
সমালোচক ও বিশেষজ্ঞদের একাংশের মত, এই বাংলাদেশ যে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ১৬ ওভার শেষে ১৪১ রান তুলতে পেরেছে, সেটাই অনেক। কিন্তু টাইগার ভক্তদের মধ্যে যারা প্রতিটি বল দেখেছেন, তারা কিন্তু তারা তা মানতে নারাজ।
তাদের বড় অংশের কথা, খেলার ফল ভিন্ন হওয়া উচিত ছিল। এ ম্যাচে বাংলাদেশ জিতে গেলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকতো না। অন্তত সৌম্য সরকার আর নাইম শেখ যতক্ষণ ক্রিজে ছিলেন, ততক্ষণ পর্যন্ত ভালোই সম্ভাবনা ছিল রিয়াদ বাহিনীর।
১৩ রানে উদ্বোধনী জুটি ভাঙার পর নাইম শেখ (৩৫ বলে ৩৮) আর সৌম্য সরকার (২৭ বলে ৫১) মিলে ৪৯ বলে ৮১ রানের দুর্দান্ত জুটি গড়েন। একটা সময় জয়কেও চোখের নাগালে মনে হচ্ছিল। কিন্তু এই জুটি ভাঙার পরই বদলে যায় দৃশ্যপট।
সৌম্য-নাইম যখন ক্রিজে, তখন বাংলাদেশের ওভার পিছু রান তোলার গড় ছিল প্রায় সাড়ে ৯। যা লক্ষ্যের খুব কাছে। পরের দিকের তিন উইলোবাজ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোহাম্মদ মিঠুন আর আফিফ হোসেন ধ্রুব হাত খুলে খেলতে পারলে ভালো সম্ভাবনা ছিল। কিন্তু তারা কেউই সেই দায়িত্ব পালন করতে পারেননি। তাদের সেই না পারার খেসারত বাংলাদেশ দিয়েছে ২৮ রানে হেরে (ডিএল ম্যাথডে)।
আর সেটাই হেড কোচ রাসেল ডোমিঙ্গোর হতাশার কারণ। খেলা শেষে আক্ষেপভরা কণ্ঠে টাইগার কোচ বলেন, ‘দেখুন, ১০ ওভার শেষে ১০০। আমি মনে করেছিলাম আমরা দারুণ শুরু পেয়েছি। তাদের খেলার ধরন এবং যেভাবে খেলেছে, তাতে আগের ম্যাচের চেয়ে উন্নতির ছোঁয়া ছিল। অবশ্যই তারা দারুণভাবে শেষ করতে পারেনি, কিন্তু আজকের দিন থেকে কিছু ইতিবাচক বিষয় নেওয়া যায়।’
ডোমিঙ্গোর উপলব্ধি, ‘পাঁচটা ওভার খারাপ হলেই নিউজিল্যান্ড আপনার ওপর চড়ে বসবে। আর এ জন্য পিছিয়েও পড়তে হবে। একটা নির্দিষ্ট পর্যায় পর্যন্ত ভালো খেলেও কিছু ভুলের কারণে ম্যাচ থেকে ছিটকে যাচ্ছি আমরা। নিউজিল্যান্ড সবসময়ই কঠিন জায়গা, তারা অসাধারণ ক্রিকেট খেলছে।’
নিজ দলের পারফরম্যান্সের মূল্যায়ন করতে গিয়ে তার ব্যাখ্যা, ‘আমরা কি করতে পারি তার ঝলক দেখাতে পেরেছি, কিন্তু পর্যাপ্ত ধারাবাহিক হতে পারিনি। আশা করি পরের ম্যাচে ৪০ ওভারেই ধারাবাহিকতা বজায় রাখব।’

ভাগ