ইসলামবিরোধী কাজ হলে আমরা এভাবে ঝাপিয়ে পড়বো : বাবুনগরী

লোকসমাজ ডেস্ক॥ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী দিবসে চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে মোদিবিরোধী আন্দোলন করে হেফাজতে ইসলাম। এ সময় পুলিশ ও হেফাজতে ইসলামের নেতা-কর্মীদের সাথে সংঘর্ষে চারজন নিহতের ঘটনায় রোববার সারাদেশে হরতাল পালন করছে দলটি। সারাদেশে তৌহীদি জনতার হরতালের সমর্থন করায় দেশের জনসাধারণকে ধন্যবাদ জানিয়ে আল্লমা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, ‘ইসলামবিরোধী কাজ হলে, জুলুম-নির্যাতন হলে আমরা আলেম-ওলামা, তৌহীদি জনতা এভাবে ঝাপিয়ে পড়বো।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের হরতাল জুলুম নির্যাতনের বিরুদ্ধে, বর্বরতার বিরুদ্ধে, ন্যায়ের পক্ষে অন্যায়ের বিরুদ্ধে, ইনসাফের পক্ষে জুলুমকারীদের বিপক্ষে। রোববার হরতাল চলাকালে হেফাজতের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর মধুপুরের পীর আল্লার ওলি আবদুল হামিদের ওপর হামলা ও গুলি করা হয়েছে। আমি এর তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’ এ সময় কাচারী সড়কের ত্রিবিনী মোড়ে রাস্তায় তিনি সাংবাদিকদেরকে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, ‘২৬ মার্চ হেফাজতে ইসলামের কর্মীদের মিছিল ছিল শান্তিপূর্ণ। ওই মিছিলে পুলিশ গুলি চালিয়ে আমাদের তিনজন ছাত্র ও একজন তাবলীগী নিরীহ কর্মজীবিসহ চারজনকে শহীদ করেছে। এ পর্যন্ত ব্রাক্ষণবাড়িয়া ঢাকাসহ সারা দেশে ১৬ জনকে শহীদ করা হয়েছে। আমরা এজন্য হরতালের ডাক দিয়েছি। শান্তিপূর্ণ ও সুশৃঙ্খলভাবে হরতাল পালিত হচ্ছে। সারা দেশে জনগণ, আলেম-ওলামা এ হরতালে সাড়া দিয়েছে, অংশগ্রহণ করেছে। তাই সবাইকে শুকরিয়া জানাচ্ছি অভিনন্দন জানাচ্ছি।’ তিনি আরো বলেন, আজকে হরতালও শান্তিপূর্ণভাবে চলছে এবং সন্ধ্যা পর্যন্ত চলবে। কিন্তু দুঃখজনক হলো সারা দেশে ক্ষমতাসীন দলের ক্যাডার বাহিনী বেশ কয়েকটি মাদরাসায় হামলা করেছে। জামিয়া ইউনুছিয়া বি.বাড়িয়ার মাদরাসা, সাইনবোর্ড মাদরাসা ঢাকা, যাত্রাবাড়ি মাদরাসা ঢাকাসহ আরো অনেক মাদরাসায় হামলা করা হয়েছে। সরকারের কাছে আমাদের দাবি এ হামলা বন্ধ করতে হবে, নিহতদের ক্ষতি পূরণ দিতে হবে, আহতদের সুচিকিৎসা দিতে হবে, গ্রেফতারকৃতদের নিঃশর্তে মুক্তি দিতে হবে। এভাবে যদি হামলা হয়, হামলা যদি বন্ধ না হয়, আমাদের দাবিগুলো যদি আদায় না হয় তাহলে পরামর্শক্রমে আমরা আরো কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবো।’ পরে হেফাজতে ইসলামের আমীর হাটহাজারী পৌরসভার জাগৃতি চত্বরে পিকেটিং ও পথ সভায় অংশগ্রহণ করে সেখানেও বক্তব্য রাখেন।

ভাগ