মোংলায় প্রতিপক্ষের হামলায় নারীসহ আহত ৫

মোংলা সংবাদদাতা॥ মোংলায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় নারীসহ পাঁচজন গুরুতর আহত হয়েছেন। শুক্রবার (২৬ মার্চ) রাতে উপজেলার সুন্দরবন ইউনিয়নের গোড়া বাঁশতলা এলাকার এ ঘটনা ঘটে। আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হলে তাৎক্ষণিক দুইজনকে এবং শনিবার (২৭ মার্চ) সকালে আরও একজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আহতদের স্বজন ও স্থানীয়রা জানান, পূর্ব শত্রুতার জেরে ওই এলাকার সোবহান হাওলাদারের সাথে একই এলাকার রোকা মিয়ার মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। ওই বিরোধের জের ধরে সোবহান হাওলাদার (৬৫) ও তার ছেলে ইয়াছিন হাওলাদার (৪০), ফারুক হাওলাদার (৩৮) এবং জামাই খোকন শেখ (৩২) শুক্রবার রাতে অতর্কিত হামলা চালায়। এতে রোকা মিয়ার (৫৫), তার স্ত্রী সেলিনা বেগম (৪০), ভাই হালিম (৪০), ভাইপো কামরুল (৩৫) ও ভাইয়ের ছেলে কামরুলের স্ত্রী কুলসুম বেগম (২৫) ছুটে এলে তাদেরকেও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। পরে আহতের স্বজনরা তাদের উদ্ধার করে রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে রোকা মিয়া ও হালিমের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাদেরকে সঙ্গে সঙ্গে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. শাহানা মোরশেদ বলেন, আহতদের মধ্যে দুইজনকে তাৎক্ষণিক খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। শনিবার আরও একজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। আহত রোকা মিয়ার বড় ভাই জলিল বলেন, ‘এলাকায় সোবহানের বিরুদ্ধে নানা অসামাজিক কর্মকাণ্ডের অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া সোবহানের ছেলে ফারুক ও জামাই খোকনের বিরুদ্ধে সুন্দরবনে দস্যুতারও অভিযোগ রয়েছে বলেও জানান তিনি। তিনি আরও বলেন, তারা এখন সুন্দরবন ছেড়ে লোকালয়ের বাড়ী ঘরে ডাকাতি করছে। ভয়ে তাদেরকে কেউ কিছু বলতে পারেনা। এ বিষয়ে সোবহান হাওলাদার জানান, দীর্ঘদিন ধরে আমাদের মধ্যে জমি জমা সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল। সেই বিরোধের জেরে শুক্রবার উভয়পক্ষের মধ্যে মারামারি হয়েছে, এতে দুই পক্ষের লোকজনই আহত হয়েছে। মোংলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, ‘এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তদন্ত শেষে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

ভাগ