চৌগাছায় টাকা ধার দেয়ার নামে বাড়িতে ডেকে গৃহবধূকে ধর্ষণ

স্টাফ রিপোর্টির॥ যশোরের চৌগাছায় টাকা ধার দেয়ার নাম করে বাড়িতে ডেকে এক সন্তানের জননীকে (২৫) ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মিজানুর রহমান (৫৫) নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে চৌগাছা থানায় মামলা করেছেন ভুক্তভোগী নারী। মিজান উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নের বাদেখানপুর গ্রামের বাসিন্দা। ঘটনার সময় ধরা পড়ে যাওয়ায় অভিযুক্তকে পালাতে সহযোগিতা করেন তার স্ত্রী ও ভাতিজা। উল্টো ওই নারীকে চুরির অপবাদ ‍দিয়ে মারধর করা হয় বলেও মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে।
মামলার এজাহারে জানা যায়, গত বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নে নিজ বাড়িতে মিজানুর এই ধর্ষণের ঘটনা ঘটিয়ে স্ত্রী-ভাতিজাদের সহায়তায় পালিয়ে যান। পরে বৃহস্পতিবার ওই নারী থানায় মামলা করলেও শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত অভিযুক্ত গ্রেফতার হননি। লিখিত অভিযোগে ওই গৃহবধূ বলেন, প্রতিবেশী মিজানুর রহমানের কাছে বুধবার সকালে মোবাইল ফোনে সমিতির কিস্তি দেয়ার জন্য ১ হাজার টাকা ধার চান তিনি। কিছুক্ষণ পরে মিজানুর ফোন করে টাকা নেয়ার জন্য ওই নারীকে তার বাড়িতে যেতে বলেন। সেখানে গেলে ঘরে ডেকে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করেন মিজান। এ সময় তার চিৎকারে মিজানুরের স্ত্রী মনিবালা বেগম (৪৫) ও মিজানুরের ভাতিজা তারিফ (২০) এসে ধাক্কা দিয়ে দরজা খুলে ঘটনা দেখে ফেলেন। এ সময় তারা ওই নারীকে দোষারোপ করে মারধর ও চুরির অপবাদ দিয়ে তাড়িয়ে দেন। পরে কৌশলে মিজানুর রহমান সেখান থেকে পালিয়ে যান। এ ঘটনায় ওই নারী বৃহস্পতিবার চৌগাছা থানায় মামলা করেন। চৌগাছা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গোলাম কিবরিয়া বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘ওই নারীকে উদ্ধার করে ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়েছে। এ বিষয়ে ধর্ষণ মামলা রেকর্ড হয়েছে। মামলাটির তদন্তে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মিজানুর রহমানকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।’

ভাগ