সেমিতে বার্সাকে হতাশায় ডুবাল সেভিয়া

লোকসমাজ ডেস্ক॥ দারুণ জয়ে কোপা দেল রে’র ফাইনালের পথে এক ধাপ এগিয়ে গেল সেভিয়া। বুধবার রাতে টুর্নামেন্টের প্রথম সেমিফাইনালে ঘরের মাঠে তারা বার্সেলোনার বিপক্ষে পেয়েছে ২-০ গোলের সহজ জয়। সেভিয়া ডিফেন্ডার হুলেস কুন্দে একক নৈপুণ্যে দুর্দান্ত এক গোল করার পর সাবেক ক্লাবের বিপক্ষে ব্যবধান ২-০ করেন ইভান রাকিতিচ। শেষ পর্যন্ত জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে সেভিয়া। লিওনেল মেসিকে বারংবার হতাশ করেছেন সেভিয়া গোলরক্ষক ইয়াসিন বোনো। ম্যাচের একাদশ মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারতো বার্সা। আঁতোয়া গ্রিজমানের বাড়ানো বল থেকে বাঁ পায়ে শট নিয়েছিলেন মেসি। কিন্তু আর্জেন্টাইন খুদেরাজের সেই শট এক পায়ে ঠেকিয়ে দেন বোনো।
ফরাসি সেন্টার ব্যাক কুন্দে ম্যাচের ২৫ মিনিটে সেভিয়াকে এগিয়ে নেন। নিজেদের এলাকা থেকে বল নিয়ে একে একে বার্সার চার খেলোয়াড়কে পরাস্ত করে দুর্দান্ত এক গোল করেন তিনি। মার্ক আন্দ্রে টার স্টেগানের চেয়ে চেয়ে দেখা ছাড়া কিছুই করার ছিল না। প্রথমার্ধেই ব্যবধান দ্বিগুণ করতে পারতো সেভিয়া। তবে ৪৫ মিনিটে সার্জিও এসকোদেরোর শটে লাফিয়ে উঠে এক হাতে দারুণ এক সেভ করেন বার্সা গোলরক্ষক। এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় সেভিয়া। দ্বিতীয়ার্ধের দশম মিনিটে ফ্রেংকি ডি ইয়ংয়ের সঙ্গে বল দেওয়া নেওয়া করে ডি-বক্সের বাইরে থেকে শট নিয়েছিরেন। ডান দিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে কর্নারের বিনিময়ে সেটি ঠেকান বোনো।
৮৫ মিনিটে সেভিয়ার জয় নিশ্চিত করা গোলটি করেন রাকিতিচ। অলিভের তরেসের উঁচু করে বাড়ানো বল পেয়েছিলেন ক্রোয়াট মিডফিল্ডার, বার্সার রক্ষণ তখন একদম খালি। সেই বল পায়ে নিয়ে একজনকে কাটিয়ে গোল করেন রাকিতিচ। ম্যাচ শেষ হওয়ার ঠিক আগমুহূর্তে ফ্রি-কিক থেকে দারুণ এক শট নিয়েছিলেন মেসি। সেভিয়া গোলরক্ষক বোনোর দক্ষতায় একটুর জন্য সেটি গোল হয়নি। ডানদিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে বল পোস্টের বাইরে ঠেলে দেন তিনি।
বার্সা অবশ্য ১-০ ব্যবধানে পিছিয়ে পড়ার পর একটি পেনাল্টি পেতে পারতো। কিন্তু জর্দি আলবাকে বিপজ্জনক এলাকার কাছে ফেলে দিয়েও পার পেয়ে যায় সেভিয়া। রেফারি অ্যান্তোনিও মাতেও লাহোজ ‘ভার’ না দেখেই ফ্রি-কিক দিয়ে দেন। ম্যাচ শেষে বার্সা কোচ রোনাল্ড কোম্যান ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘সবাই বলছিল, এটা পেনাল্টি। তারা অনেক বেশি ফাউল করেছে, কিন্তু সবই চতুরতার সঙ্গে। আমার মনে হয়, আমাদের এমন ফল পাওয়ার কথা ছিল না। আমরা ভালো খেলেছি এবং অনেক ‍সুযোগ তৈরি করেছি। আমার মনে হয়, যেভাবে খেলেছি ফলটা মেনে নেয়ার মতো নয়।’ এই ম্যাচে হারলেও অবশ্য ফাইনালে ওঠার সম্ভাবনা এখনও আছে বার্সেলোনার। আগামী ৩ মার্চ ফিরতি লেগে ঘরের মাঠে খেলবে তারা। সেখানে সেভিয়াকে হারিয়ে পরিষ্কারভাবে এগিয়ে থাকতে পারলে ফাইনালে উঠতে পারবে লিওনেল মেসির দল।

ভাগ