২ গোলে এগিয়ে গিয়েও পিএসজির হার

লোকসমাজ ডেস্ক॥ কিলিয়ান এমবাপ্পে করলেন জোড়া গোল। প্রথমার্ধ শেষে ২-০ গোলে এগিয়ে থাকায় ফরাসি লিগ ওয়ানে টানা নবম জয়ের সুবাস পেতে থাকে প্যারিস সেন্ত জার্মেই। কিন্তু সেস্ক ফাব্রিগাসদের চিন্তায় ছিল অন্য কিছু। দুর্দান্ত প্রত্যাবর্তনের গল্প লিখে ২ গোলে পিছিয়ে থেকেও মোনাকো হারিয়ে দিলো পিএসজিকে। কেভিন ভোল্যান্ডের জোড়ার পর ফাব্রেগাসের পেনাল্টিতে ৩-২ গোলের অবিশ্বাস্য জয় পেয়েছে মোনাকো। আন্তর্জাতিক বিরতির পর শুক্রবার রাতেই প্রথমবার মাঠে নেমেছিল পিএসজি। মোনাকোর মাঠে শুরুতে সুবিধা করতে না পারলেও গোলমুখে নেওয়া প্রথম শটেই স্কোরের খাতা খোলে তাদের। ২৫তম মিনিটে আনহেল ডি মারিয়ার পাস ধরে জোরালো শটে বল জালে জড়ান এমবাপ্পে। এই ফরাসি ফরোয়ার্ড বিরতিতে যাওয়ার মিনিট আটেক আগে আরেকবার জাল খুঁজে পেলে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নেয় পিএসজি। তবে বিরতির পর ম্যাচের দৃশ্যপট এভাবে পাল্টে যাবে, ভাবা যায়নি। চোট কাটিয়ে ফেরা নেইমার বদলি হিসেবে মাঠে নেমেও হার ঠেকাতে পারেননি ফরাসি চ্যাম্পিয়নদের। ৫২ মিনিটে ভোল্যান্ডের প্রথম গোলের খানিক পরই ডি মারিয়ার বদলি হয়ে মাঠে নামেন নেইমার। তিনি আসায় দল অনুপ্রাণিত হবে কী, উল্টো ৬৫ মিনিটে দ্বিতীয় গোল হজম করে পিএসজি। ভোল্যান্ড দ্বিতীয়বার জাল খুঁজে পেয়ে সমতায় ফেরে মোনাকো।
দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ানো স্বাগতিকরা ৮৪ মিনিটে এগিয়েও যায় ফাব্রেগাসের স্পট কিক থেকে। পিএসজির আবদু দিয়ালো নিজেদের সীমানায় ফাউল করলে রেফারি বাজান পেনাল্টি বাঁশি। শুধু তা-ই নয়, লাল কার্ডও দেখতে হয় পিএসজি ডিফেন্ডারকে। ফাব্রেগাসের গোলে লিড পাওয়া মোনাকো ১০ জনের পিএসজির বিপক্ষে বাকি সময়টা উতরে গিয়ে পায় দুর্দান্ত এক জয়। জয়টা আসলে তাদেরই প্রাপ্য ছিল। কেননা মোট শট ও গোলমুখের শটের হিসাবে স্বাগতিকরাই এগিয়ে ছিল। মোনাকোর ১৫ শটের বিপরীতে ৯ শট পিএসজির। বল পজেশনেও তারা এগিয়ে ছিল সফরকারীদের চেয়ে (৫৩/৪৭)। এই জয়ে ১১ ম্যাচ শেষে ২০ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে মোনাকো। আর মৌসুমের তৃতীয় হারে সমান ম্যাচে ২৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে পিএসজি।

ভাগ