ছাগলের চামড়া ১০, গরুর ৫০ টাকাও নিতে চায় না

সাতক্ষীরা সংবাদদাতা॥ সাতক্ষীরায় কোরবানির গরু ও ছাগলের চামড়া বিক্রি হচ্ছে না। বিক্রি না হওয়ায় মাদরাসা এতিমখানায় চামড়া দান করে দিচ্ছেন কেউ কেউ। আবার কেউ ছাগলের চামড়া ১০ টাকা আর গরুর চামড়া ৫০ টাকায় বিক্রি করছেন। সাতক্ষীরার তালা সদরের খড়েরডাঙ্গা গ্রামের আব্দুল মজিদ, আনার আলী সরদার, বোরহান খাঁ গরু কোরবানি করেছেন। কেউই গরুর চামড়া বিক্রি করতে পারেননি। কোনো উপায় না পেয়ে এতিমখানায় দান করেছেন তারা। আনার আলী সরদার জানান, গরুর চামড়া নিতে চাইছে না চামড়া বেপারিরা। দাম বলেছে, ৫০ টাকা। সেটিও নিতে চায় না। কোন উপায় না পেয়ে এতিমখানায় দিয়েছি। শুধু আমি নই সকলেরই এমন অবস্থা। গরু ও ছাগলের চামড়ার এখন কোনো মূল্য নেই।
তালা উপজেলার শিবপুর গ্রামের মতিয়ার সরদার ১০ টাকায় বিক্রি করেছেন কোরবানির একটি ছাগলের চামড়া। অনেকটা জোর করে বেপারিকে দিয়েছেন তিনি। মতিয়ার সরদার জানান, চামড়া বেপারিরা কেউ চামড়া নিতে আসছে না। এতিমখানাতেও নিতে চায় না। এ চামড়ায় যে লবণ দিতে হবে সেটিতে তাদের খরচ বেড়ি পড়বে বলে জানিয়েছে। কোনো উপায় না পেয়ে গোবিন্দ নামের এক বেপারির কাছে অনেকটা জোরপূর্বক ১০ টাকায় দিয়ে দিয়েছি। তালা বাজারের চামড়া ব্যবসায়ী গোবিন্দ দাস বলেন, মিডিয়াম সাইজের গরুর চামড়ার মূল্য ৫০ টাকা আর বড় সাইজের গরুর চামড়ার মূল্য ১০০ টাকা। ছাগলের চামড়ার মূল্য ১০ টাকা। সেটিও ভালো হলে নেব, না হলে নেব না। তবে তালা বাজারের দোকানে পৌঁছে দিতে হবে। দাম কমের কারণ হিসেবে তিনি বলেন, একটি চামড়া কিনে আমাকে ১০০-১৫০ টাকার লবণ লাগাতে হবে। তারপর বিক্রি করতে হবে। আমি ১৫০-২০০ টাকার বেশি বিক্রি করতে পারবো না। চামড়ার ব্যবসায় কোনো লাভ নেই। চামড়া ব্যবসায়ীদের ব্যাপারে জেলা প্রশাসক এস.এম মোস্তফা কামালের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

ভাগ