চুয়াডাঙ্গায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রায় জীবনযাত্রা অচল

রিফাত রহমান, চুয়াডাঙ্গা॥ তীব্র শীতে গোটা চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবনযাত্রা অচল হয়ে পড়েছে। গেল প্রায় একমাসে বহু খেটে খাওয়া মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে। তবে ওই কর্মহীন মানুষদের খাদ্য সহায়তা না দিয়ে চলছে নিম্নমানের কম্বল বিতরণ ও ফটোসেশন। যা বিরক্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। চুয়াডাঙ্গায় কয়েকদিন বাদে সকাল থেকে সূর্যের দেখা মিললেও শৈত্য প্রবাহের কারণে স্বাভাবিক কর্মজীবন হয়ে পড়েছে দুর্বিসহ। নিউমোনিয়ায় চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৬ জন শিশুর মৃত্যু হয়েছে।
চুয়াডাঙ্গা প্রথম শ্রেণির আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রকিবুল হাসান জানান,এ জেলায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড থাকায় তীব্র শৈত্য প্রবাহের সঙ্গে সঙ্গে প্রচন্ড শীত অনুভূত হচ্ছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৬ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়। বাতাসের আর্দ্রতা ছিলো ৯৭ শতাংশ। এরআগে এদিন সকাল ৬টায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৬ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিলো। ওই সময় বাতাসের আর্দ্রতা ছিলো ৯৬ শতাংশ। গত প্রায় একমাস এ জেলায় ক্রমাগত তাপমাত্রা কমছে। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বেশিভাগ দিনই কুয়াশাচ্ছন্ন আবহাওয়া বিরাজ করছে। দিনে তাপমাত্রা বেশি হলেও রাত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তাপমাত্রা কমে হাড় কাঁপানো শীত অনূভূত হচ্ছে। এর ফলে জনজীবনে দুর্ভোগ বাড়ছে।
এ আবহাওয়া আরো কয়েক দিন অব্যাহত থাকবে বলে আবহাওয়া কর্মকর্তা জানান। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতল সূত্রে জানা যায়, হাসপাতালে শীতজনিত রোগ নিউমোনিয়ায় এ পর্যন্ত ৬ শিশুর মৃত্যু হয়েছে। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা.মো. আতাউর রহমান জানান, শীতের কারণে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা হাসপাতালে বেড়ে গেছে। অতিরিক্ত রোগীর চাপ থাকায় চিকিৎসাসেবা দেয়া দ্রুুহ হচ্ছে। মারা যাওয়া ও অবসরজনিত কারনে এ হাসপাতালে চিকিৎসক সঙ্কট দেখা দিয়েছে। নেই কলেরার স্যালাইন। ওষুধের সঙ্কট থাকায় রোগীদের সব ওষুধ সরবরাহ করা যাচ্ছেনা। ৫০ শয্যা হাসপাতালের বরাদ্দ দিয়ে ২৫০ শয্যার হাসপাতাল সামলানো কষ্টসাধ্য ব্যাপার হয়ে দাঁড়িছে। তবুও সেবা অব্যাহত রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে। প্রত্যেকদিন ২৫০ থেকে ৩০০ জন ভর্তি রোগী ও বহিঃবিভাগে ১ হাজার ৭০০ থেকে ১ হাজার ৮০০ জন রোগীর চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। গত ১ জানুয়ারি হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে চুয়াডাঙ্গা শহরের প্রান্তপাড়ায় তোয়াব আলীর ২০ দিন বয়সী মেয়ে তাসকিন ও জেলার জীবননগর উপজেলার মনোহরপুর গ্রামের প্রদীপের মেয়ে ৮ মাস বয়সী বৈশাখী, ৬ জানুয়ারি সদর উপজেলার সরোজগঞ্জের লিটনের ছেলে ১০ দিন বয়সী আবু রহমান ও একই উপজেলার ডিঙ্গেদহ গ্রামের মনিরুলের ছেলে একমাস বয়সী আব্দুল্লাহ, সদর উপজেলার বালীয়াকান্দি গ্রামের ফরিদের মেয়ে চারঘন্টা বয়সী মেয়ে ফাতেমা ও একই উপজেলারে পীরপুর গ্রামের শরিফুলের একদিন বয়সী মেয়ে টুনি মারা গেছে। তবে এ পর্যন্ত ডায়রিয়ায় চিকিৎসা নিতে আসা কোন রোগী মারা যায়নি।
চুয়াডাঙ্গা টানা শৈত প্রবাহের সঙ্গে সঙ্গে শীতের কারণে জনজীবন অচল হয়ে পড়েছে। দিনে দিনে কর্মহীন হয়ে পড়েছে মানুষ। শীতের সকালে কথা হয় রিক্সাভ্যান ও রিক্সা চালক রেজাউল, আব্দুর রাজ্জাক,শুকুর আলীর সঙ্গে। তারা বলেন, সকালে রিক্সাভ্যান ও রিক্সা নিয়ে বের হলে আগে ভাল উপার্জন হতো। প্রচন্ড শীতের কারণে লোকজন বাড়ি থেকে বের হতে পারছে না। স্কুলের ছাত্র-ছাত্রী ও অফিসগামী লোকজন বের হচ্ছেন কম। সে কারণে ভাড়া নেই বললেই চলে।  একটি ব্যাংকের কর্মচারী মুক্তার বলেন, শীতে বাড়ি থেকে বের হতে ইচ্ছা হয়না। কিন্তু চাকরির কারণে বাড়িতে থাকা হয়না। এত খারাপ আবহাওয়া হওয়ার পরও অফিসে আসতে হচ্ছে, যা অত্যন্ত কষ্টদায়ক।  চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম খান বলেন, শীতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে শীতবস্ত্র বিতরণ চলছে। এছাড়া প্রশাসনের পক্ষ বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে পত্র পাঠিয়ে তাদেরকে শীতবস্ত্র বিতরণের আহব্বান জনানো হয়েছে। শীতের কারণে খেটে খাওয়া কর্মহীন মানুষের খাদ্য সঙ্কট দূর করার জন্য জেলা প্রশাসনের তরফ থেকে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।