সংঘর্ষের পর চীন সীমান্তে ভারতের যুদ্ধবিমানের টহল, বাড়ছে উত্তেজনা

চীনা সেনাদের সঙ্গে সংঘর্ষের পর অরুণাচল প্রদেশ সীমান্তে নিজেদের যুদ্ধ বিমান উড়াচ্ছে ভারতীয় বিমান বাহিনী। এতে দুই দেশের সীমান্তে উত্তেজনা বেড়ে চলেছে। সীমান্তে চীনের যুদ্ধবিমানের ‘সন্দেহজনক গতিবিধি’ লক্ষ্য করার পরই সেখানে যুদ্ধের প্রস্তুতিমূলক টহল দিচ্ছে ভারতীয় যুদ্ধবিমান।
এক বছরের বেশি সময়ের মধ্যে এই প্রথম এ দুই প্রতিবেশী দেশের সেনাদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটল। ২০২০ সালে সীমান্তে বড় ধরনের এক সংঘর্ষে অন্তত ২৪ সেনা নিহত হওয়ার পর থেকে দেশ দুটি উত্তেজনা নিরসনে কাজ করে আসছিল। তবে, চীনের বিমানকে প্রতিহত করতে সম্প্রতি ‘দুই-তিনবার’ যুদ্ধ বিমান ওড়াতে হয়েছিল ভারতকে।
ভারতের অরুণাচল প্রদেশের তাওয়াং সেক্টরের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখার (এলএসি) কাছে গত শুক্রবার (৯ ডিসেম্বর) চীনের সৈন্যদের সাথে ভারতীয় সামরিক বাহিনীর সদস্যদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সোমবার এ ঘটনা জানাজানি হয়। ওই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই জানা গেল, যুদ্ধবিমান নিয়ে যুদ্ধের প্রস্তুতিমূলক টহল দিচ্ছে ভারত।
ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং মঙ্গলবার সংসদে জানিয়েছেন, চীনের সৈন্যরা জোরপূর্বক তাওয়াং সেক্টরের প্রকৃত সীমান্ত রেখা পরিবর্তন করার চেষ্টা চালিয়েছিল। কিন্তু ভারতীয় সেনা কমান্ডারদের তাৎক্ষণিক হস্তক্ষেপের কারণে চীনের সৈন্যরা ফিরে যেতে বাধ্য হয়। পরবর্তীতের পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে চীনকে এ ধরনের কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানানো হয়।
এর আগে ২০২০ সালে পূর্ব লাদাখের গালওয়ান ভ্যালিতেবড় ধরনের সংঘাতে জড়িয়েছিল ভারত ও চীনের সৈন্যরা। সেই সংঘাতে ভারতের ২০ জন এবং চীনের ৪ জন সেনা নিহত হয়েছিল।
চীন ও ভারতের মধ্যে ৩৪৪০ কিলোমিটার দীর্ঘ বিরোধপূর্ণ সীমান্ত আছে। লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল (এলএসি) নামের এই সীমান্ত দুর্বলভাবে চিহ্নিত করা। পার্বত্য অঞ্চলের বহু নদী, হ্রদ ও তুষার আবৃত পর্বতের কারণে এই ‘লাইন’ অনেক সময় পরিবর্তিত হয়ে যায়। তখন অনেক পয়েন্টেই বিশ্বের দুই বৃহত্তম সেনাবাহিনীর সেনারা মুখোমুখি দাঁড়িয়ে যায়।