২৭ ও ২৮ জানুয়ারি ডা. আব্দুর রাজ্জাক কলেজের রজত জয়ন্তী পালনে ব্যাপক প্রস্তুতি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আগামী ২৭ ও ২৮ জানুয়ারি পালিত হবে যশোর ডা. আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজের রজত জয়ন্তী-২২। ১৯৯৭ সালে ১৭ জন শিক্ষক ও ১৩ জন শিক্ষার্থী নিয়ে এ কলেজের যাত্রা শুরু হয়।
রজত জয়ন্তী পালন উপলক্ষে নবীন ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের মিলন মেলা, বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, আলোচনা ও ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। প্রাক্তণ ছাত্র, বর্তমানে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের জন্য ১ হাজার ৫শ’ টাকা, ১ হাজার ২শ’ টাকা ও ৭শ টাকা রেজিস্ট্রেশন ফি নির্ধারণ করা হয়েছে। কলেজের ফেসবুক উধৎসপ লধংযড়ৎবসহ নতুন ফেসবুকের মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশনের পদ্ধতি জানিয়ে দেয়া হবে। আগামী ৭ ডিসেম্বর কলেজ থেকে প্রচার র‌্যালি বের হবে। র‌্যালিটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করবে।
গতকাল বেলা ১১টায় কলেজের অধ্যক্ষ জেএম ইকবাল হোসেন সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান। কলেজের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত সাংবাদিক সম্মেলনে উপাধ্যক্ষ মো. মঞ্জুরুল হাসান, কলেজ পরিচালনা কমিটির অভিভাবক সদস্য, সাংবাদিক সাজেদ রহমানসহ সকল শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।
সংবাদ সম্মেলনে কলেজের অধ্যক্ষ জেএম ইকবাল হোসেন বলেন, রজত জয়ন্তী অর্থবহ করার জন্য শিক্ষামন্ত্রী ও শিক্ষা উপমন্ত্রীসহ পদস্থ কর্মকর্তাবৃন্দকে আমন্ত্রণ জানানো হবে। পড়ালেখার মানের দিক দিয়ে দক্ষিণাঞ্চলের মধ্যে ডা. আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজটি সকলের সহযোগিতায় অনেক এগিয়ে গেছে। কলেজের প্রতিষ্ঠালগ্নে অধ্যক্ষ ছিলেন সুলতান আহমেদ। সংসদ সদস্য ও পৗর সভার চেয়ারম্যান থাকাকালে প্রয়াত আলী রেজা রাজু, প্রফেসর শরীফ হোসেন, প্রফেসর কাজী মো. কামরুজ্জামান, প্রফেসর মো. শমশের আলী প্রফেসর মো. মুস্তাফিজুর রহমানসহ যশোরের বিভিন্ন রাজনৈতিক-সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ব্য্িক্তত্ব পৌরসভার ৭৫ শতাংশ জমির উপর কলেজটি প্রতিষ্ঠা করেন। ডা. আব্দুর রাজ্জাকের পুত্র কনকর্ড গ্রুপের স্বত্বাধিকারী এসএম কামাল উদ্দিন আর্থিকভাবে সহযোগিতা করেন এবং ভবন নির্মাণ করেন।
স্টাফ রিপোর্টার ॥ আগামী ২৭ ও ২৮ জানুয়ারি পালিত হবে যশোর ডা. আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজের রজত জয়ন্তী-২২। ১৯৯৭ সালে ১৭ জন শিক্ষক ও ১৩ জন শিক্ষার্থী নিয়ে এ কলেজের যাত্রা শুরু হয়।
রজত জয়ন্তী পালন উপলক্ষে নবীন ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের মিলন মেলা, বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, আলোচনা ও ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। প্রাক্তণ ছাত্র, বর্তমানে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের জন্য ১ হাজার ৫শ’ টাকা, ১ হাজার ২শ’ টাকা ও ৭শ টাকা রেজিস্ট্রেশন ফি নির্ধারণ করা হয়েছে। কলেজের ফেসবুক উধৎসপ লধংযড়ৎবসহ নতুন ফেসবুকের মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশনের পদ্ধতি জানিয়ে দেয়া হবে। আগামী ৭ ডিসেম্বর কলেজ থেকে প্রচার র‌্যালি বের হবে। র‌্যালিটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করবে।
গতকাল বেলা ১১টায় কলেজের অধ্যক্ষ জেএম ইকবাল হোসেন সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান। কলেজের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত সাংবাদিক সম্মেলনে উপাধ্যক্ষ মো. মঞ্জুরুল হাসান, কলেজ পরিচালনা কমিটির অভিভাবক সদস্য, সাংবাদিক সাজেদ রহমানসহ সকল শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।
সংবাদ সম্মেলনে কলেজের অধ্যক্ষ জেএম ইকবাল হোসেন বলেন, রজত জয়ন্তী অর্থবহ করার জন্য শিক্ষামন্ত্রী ও শিক্ষা উপমন্ত্রীসহ পদস্থ কর্মকর্তাবৃন্দকে আমন্ত্রণ জানানো হবে। পড়ালেখার মানের দিক দিয়ে দক্ষিণাঞ্চলের মধ্যে ডা. আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজটি সকলের সহযোগিতায় অনেক এগিয়ে গেছে। কলেজের প্রতিষ্ঠালগ্নে অধ্যক্ষ ছিলেন সুলতান আহমেদ। সংসদ সদস্য ও পৗর সভার চেয়ারম্যান থাকাকালে প্রয়াত আলী রেজা রাজু, প্রফেসর শরীফ হোসেন, প্রফেসর কাজী মো. কামরুজ্জামান, প্রফেসর মো. শমশের আলী প্রফেসর মো. মুস্তাফিজুর রহমানসহ যশোরের বিভিন্ন রাজনৈতিক-সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ব্য্িক্তত্ব পৌরসভার ৭৫ শতাংশ জমির উপর কলেজটি প্রতিষ্ঠা করেন। ডা. আব্দুর রাজ্জাকের পুত্র কনকর্ড গ্রুপের স্বত্বাধিকারী এসএম কামাল উদ্দিন আর্থিকভাবে সহযোগিতা করেন এবং ভবন নির্মাণ করেন।