ঝিনাইদহে ওএমএস’র চাল না পেয়ে ফিরে যাচ্ছে মানুষ

স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহ॥ ঝিনাইদহের বিভিন্ন এলাকায় যখন নবান্ন উৎসব চলছে, তখন ওএমএস’র চাল বিক্রির ডিলারদের দোকানের সামনে দীর্ঘ লাইন দেখা যাচ্ছে। ভোর থেকে লাইনে দাঁড়িয়েও চাল পাচ্ছে না অনেক মানুষ। চালের বরাদ্দ কমিয়ে দেয়ার কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে খাদ্য বিভাগ থেকে বলা হচ্ছে। আবার অনেক সময় প্রভাবশালী ও মুখচেনা মানুষদের চাল দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ।  জেলার ৬টি পৌরসভা এলাকায় পহেলা সেপ্টম্বর থেকে ওএমএস ডিলারদের মাধ্যমে চাল বিক্রি শুরু করে খাদ্য বিভাগ। আগে আসলে আগে পাবেন এমন ভিত্তিতে ২৪ জন ডিলারের মাধ্যমে ৩০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রি শুরু হয়। প্রতি ডিলারকে প্রতিদিন দু’টন করে চাল বরাদ্দ করা হতো। একজন ক্রেতা ৫ কেজি করে চাল কিনতে পারতো। এতে প্রতিদিন জেলায় ৯ হাজার ৬০০ জন সাশ্রয়ী মূল্যে চাল কিনতে পারতো। শুরুর থেকেই ডিলারদের ঘরের সামনে দরিদ্র মানুষের লাইন দেখা যায়। বর্তমানে চালের পরিমাণ কমিয়ে দেয়া হয়েছে। ডিলার প্রতি দৈনিক একটন করে চাল বরাদ্দ করা হচ্ছে। একজন ডিলারের কাছ থেকে দুশজন চাল কিনতে পারছেন। প্রতিদিন রাত থেকে ডিলারের দোকানের সামনে লম্বা লাইন পড়ছে। আর লাইনে দাঁড়ানো অর্ধেক মানুষ চাল না পেয়ে ফিরে যাচ্ছে। শুধু ঝিনাইদহ শহরের ডিলারদের ৫ টন আটা দেয়া হচ্ছে। প্রতি কেজি আটার দাম ২৪ টাকা। সেখানেও লাইনে দাঁড়িয়ে অনেকে আটা পাচ্ছেন না। শৈলকুপা শহরের প্রাণিসম্পদ অফিসের ডিলারের দোকানে চাল কিনতে আসা আউশিয়া গ্রামের আনজুরা বেগম বলেন, তিনি তিন দিন ঘুরেও চাল কিনতে পারেন নি। লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে জানতে পারেন চাল ফুরিয়ে গেছে। খালধারপাড়া গ্রামের রাশিদা বেগম বলেন, তিনদিন ঘোরার পর গত মঙ্গলবার তিনি চাল পেয়েছেন। ফরিদা বেগম নামে আরেক মহিলাও একই কথা বলেন। ওএমএস ডিলার খায়রুল ইসলাম মুকুল বলেন, প্রতিদিন ক্রেতা ভোর রাতে এসে দোকানের সামনে লাইন দেয়। তিনি বলেন, চালের পরিমাণ কমিয়ে দেয়ায় অর্ধেক ক্রেতা ফিরে যায়। বিষয়টি নিয়ে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক হাসান মিয়া জানান, ১৭ অক্টোবর থেকে সরকারের নির্দেশে ডিলার প্রতি বরাদ্দ কমিয়ে এক টন করা হয়েছে। এ জন্যে চাহিদা মেটানো যাচ্ছে না।