পাকিস্তানে লংমার্চে হামলায় ইমরান খান গুলিবিদ্ধ

লোকসমাজ ডেস্ক॥ পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী এবং তেহরিক ই ইনসাফ পার্টির প্রধান ইমরান খানের ডাকা সরকারবিরোধী লংমার্চে বন্দুক হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে তিনি আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। ইমরান খানের পায়ে গুলি লেগেছে।
গতকাল বৃহস্পতিবার ওয়াজিরাবাদের কাছে ইমরানকে বহনকারী গাড়ি লক্ষ্য করে অজ্ঞাত বন্দুকধারীরা গুলি ছোড়ে বলে জানিয়েছে পাকিস্তানের সংবাদ মাধ্যম দ্য ডন।
এই হামলায় ইমরান খান ও তার দুই সিনেটর ফয়সাল জাভেদ ও আহমেদ ছাট্টা আহত হয়েছেন।
পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও পিটিআই প্রধান ইমরান খান আগাম নির্বাচনের দাবিতে কয়েকদিন ধরে আন্দোলন করছেন। এ দাবি আদায়ের লক্ষ্যে গত শুক্রবার থেকে রাজধানী ইসলামাবাদ অভিমুখে লং মার্চ শুরু করেন তিনি। লং মার্চ করায় তার ওপর ভীষণ ক্ষিপ্ত হয়েছে পাকিস্তানের বর্তমান সরকার। শোনা যাচ্ছে ইমরান খানকে আটকও করা হতে পারে।
এর মাঝেই বুধবার পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রানা সানাউল্লাহ জানিয়েছেন, ইমরান খানকে আটক করা হলে কোন কারাগারে রাখা হবে সেটিও ঠিক করে ফেলেছেন তিনি। এমনকি সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীকে কারাগারের কোন ওয়ার্ডে রাখা হবে সে বিষয়েও জানিয়েছেন তিনি।
বুধবার স্থানীয় সময় রাতে পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যম জিও নিউজের ‘ক্যাপিটাল টক’ অনুষ্ঠানে রানা সানাউল্লাহ বলেন, যেহেতু রাজনীতিবীদরা মাচ জেলে আগে থেকেছেন, সেজন্য আমি তাকে মাচ জেলের মিরচি ওয়ার্ডে রাখব। সানাউল্লাহ আরও বলেন, যদি তিনি ইমরান খানকে ধরেন তাহলে তাকে আর ছাড়বেন না।
চলতি বছরের মার্চে অনাস্থা ভোটে প্রধানমন্ত্রিত্ব হারান ইমরান খান। ক্ষমতা হারানোর পর থেকেই তিনি বলে আসছেন ‘বিদেশি ষড়যন্ত্রে’ ক্ষমতাচ্যুত হয়েছেন। এরপর থেকেই আগাম নির্বাচনের দাবিতে দেশজুড়ে রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করে আসছেন তিনি।
ক্ষমতা হারানোর দুই মাস পর রাজধানীর উদ্দেশে লং মার্চ করে সেখানে অবস্থান নিয়েছিলেন। কিন্তু দেশটির আইন-শৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে পিটিআই সমর্থকদের সংঘর্ষ বেধে গেলে রাতের বেলা হঠাৎ করে সমর্থকদের অবস্থানস্থল ছেড়ে চলে যাওয়ার নির্দেশ দেন তিনি।
লং মার্চের ৪র্থ দিন গত মঙ্গলবার ইমরান খান পাকিস্তানে একটি শান্তিপূর্ণ বিপ্লব আসছে বলেও মন্তব্য করেন।
ইমরান খান বলেন, ‘যখন আমরা একটি শহরের মধ্য দিয়ে যাবো, সবাই দেখতে পাবেন যে দেশে বিপ্লব আসছে। জাতি জানবে পাকিস্তানে একটি শান্তিপূর্ণ বিপ্লব আসছে।’