যশোরে শ্রমিক লীগের সংবাদ সম্মেলনে আরেক পক্ষের কুৎসা

 

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যশোর জেলা শ্রমিক লীগে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করেছেন সংগঠনের সাইফুর রহমান-আসাদুজ্জামান বাবলুর নেতৃত্বাধীন একটি অংশ। শনিবার দুপুরে প্রেসক্লাব যশোরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তারা এমন অভিযোগ করেন। লিখিত বক্তব্যে আসাদুজ্জামান বাবলু সংগঠনটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ দাবি করে বলেন, সংগঠন বিরোধী কর্মকান্ডে লিপ্ত থাকার অভিযোগে জেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিনকে কার্যনির্বাহী কমিটি থেকে অব্যাহতি দেয়ার সুপারিশ করে কেন্দ্রে পাঠানো হয়। ২০১৯ সালের ৫ অক্টোবর অনুষ্ঠিত কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় ৭০ জনের মধ্যে ৫১ জন উপস্থিত ছিলেন। তাদের সর্বসম্মত সিদ্ধান্তটি রেজুলেশন আকারে পাঠানো হয় কেন্দ্রে। একই সাথে নাসির উদ্দিনের বিষয়ে কেন্দ্র থেকে কোনো ধরণের সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত আসাদুজ্জামান বাবলু ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন বলে সিদ্ধান্ত হয়। সেই থেকে আজ পর্যন্ত নাসির উদ্দিনের বিষয়ে কেন্দ্র থেকে কোনো সিদ্ধান্ত আসেনি। এ কারণে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন আসাদুজ্জামান বাবলু।
সর্বশেষ, জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি আজিজুর রহমানের মৃত্যুর পর গত ২৩ জুলাই কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক আজম খসরু স্বাক্ষরিত একটি পত্রে জানানো হয় সাইফুর রহমান ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও আসাদুজ্জামান বাবলু ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। এখন থেকে এই দু’জন তাদের আওতাধীন সকল উপজেলা কমিটি/থানা কমিটি/ইউনিয়ন কমিটি/ওয়ার্ড কমিটি/ ব্যাসিক ইউনিয়ন ও সহযোগী সংগঠনের অনুমোদন দিবেন বলে পত্রে উল্লেখ করা হয়েছে। এই অবস্থায় অব্যাহতিপ্রাপ্ত নাসির উদ্দিন বিভিন্ন ইউনিটের কমিটি অনুমোদন দিয়ে সংগঠনের মধ্যে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছেন। এ ধরণের কর্মকান্ডে যশোর জেলা শ্রমিক লীগ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে এবং নেতাকর্মীরা বিভ্রান্ত হচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন আসাদুজ্জামান বাবলু। তিনি সংবাদ সম্মেলনে নাসির উদ্দিনের সংগঠন বিরোধী কর্মকান্ডে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য নেতাকর্মীদের প্রতি অনুরোধ জানান। একই সাথে নাসির উদ্দিনের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জেলা শ্রমিক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সাইফুর রহমান, সহ-সভাপতি শেখ আলাউদ্দিন, মহাসিন কবির, সালাহউদ্দিন, আকরাম হোসেন ও সেলিম সিকদার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন ও শাহানুর হোসেন প্রমুখ।

Lab Scan
ভাগ