যশোর জেনারেল হাসপাতালে বছরে ২ কোটি ১৬ লাখ রাজস্ব আয় হলেও মেলেনা কাঙ্ক্ষিত সেবা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে বাড়তি টাকা নিয়ে রাজস্ব আয় বৃদ্ধি করা হলেও রোগীরা কাক্সিক্ষত চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেন না।
সূত্র জানিয়েছেন, ২০২১-২২ অর্থ বছরে এ হাসপাতালে ২ কোটি ১৬ লাখ ২৭ হাজার ৫শ ৭৫ টাকার রাজস্ব আয় হয়েছে। ১৯টি খাত থেকে এ অর্থ আয় হয়। এর ভেতর বহির্বিভাগে রোগীর টিকিট থেকে ১৯ লাখ ৭ হাজার ১৫ টাকা এবং জরুরি বিভাগ থেকে ১০ লাখ ৯২ হাজার ৩শ ৯০ টাকা মিলে ৩০ লাখ ৫ টাকা আয় হয় দু’টি বিভাগ থেকে। সরকারিভাবে বহির্বিভাগে প্রতিটি টিকিটের মূল্য ৫ টাকা হলেও হাসপাতালে মানসম্মত চিকিৎসা সেবা প্রদানের নামে ৫ টাকা বৃদ্ধি করে নেয়া হচ্ছে ১০ টাকা। আর জরুরি বিভাগে বহির্বিভাগে ১০ টাকা ও ভর্তি ১০ টাকা মিলে নেয়া হয় ২০ টাকা। হাসপাতালে আইসিইউ চিকিৎসা প্রদানের নামে সাধারণ রোগীদের কাছ থেকে নেয়া হচ্ছে মোটা অংকের টাকা। আয় হওয়া এ টাকার অর্ধেক জমা হচ্ছে সরকারের রাজস্ব খাতে। বাকী অর্ধেক টাকা আইসিইউ নামে অন্য থাকে জমা হলেও তা ব্যয় করা হচ্ছে বিভিন্ন থাকে। যার হিসাব জনগণ জানে না। জেলা হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় পাশ করিয়ে এ অতিরিক্ত ঢাকা নেয়া হচ্ছে সাধারণ মানুষের নিকট থেকে। রাজস্ব আয়ের অন্য খাতগুলো হচ্ছে, এক্সরে, ইসিজি, আল্ট্রাসনোগ্রাম, প্যাথলজি, পেয়িংবেড, ইসিজি, অ্যাম্বুলেন্স, সিটিস্ক্যান, ইকো, কোভিড-১৯ প্যাথলজি, আইসোলেশন, ও রেডজোান। হাসপাতালের আয়ের খাত জোরদার করার সময় কর্তৃপক্ষের প্রতিশ্রতি ছিল আইসিইউসহ বিভিন্ন বিভাগে রোগীদের ভাল চিকিৎসা সেবা দেয়া। এরপর বাড়তি টাকা গ্রহণ করা হলেও কর্তৃপক্ষ মানুষের মানসম্মত চিকিৎসা দিতে পারছেন না। ফলে ভাল চিকিৎসা না পেয়ে অনেক রোগী কোন ছাড়পত্র না নিয়ে হাসপাতাল ছেড়ে অন্যত্র চলে যাচ্ছে। আর হাসপাতাল ছাড়ার কারণ উল্লেখ না করে খাতায় তাদের পলাতক রোগী হিসেবে দেখানো হচ্ছে। এ অপবাদ দিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নিজেদের দায় এড়িয়ে যাচ্ছেন। এ ঘটনা ঘটছে প্রতিনিয়ত। রোগীদের কাছ থেকে নেয়া অতিরিক্ত অর্থ ব্যয়ের ক্ষেত্রেও

 

Lab Scan
ভাগ