ফেলনা নয় কলার খোসা!

লোকসমাজ ডেস্ক॥ কলার খোসা দিয়েই এমন কিছু কার্যোদ্ধার হতে পারে যা, সাধারণত মাথায় আসা কঠিন। বিশেষ করে অল্প পাকা কলার খোসা বেশ কিছু ঘরোয়া কাজে জুতসই হতে পারে।
জুতা সাফাই
চটজলদি বাইরে যেতে হবে অথচ জুতা পরিষ্কার করার জিনিসপত্র নেই হাতের কাছে? ব্যবহার করতে পারেন কলার খোসা। বিশেষ করে চামড়া ও ফোমের তৈরি জুতা চকচকে করতে বেশ কার্যকর হতে পারে কলার খোসা। কাঁচা-পাকা কলার খোসা এই কাজে সবচেয়ে উপযোগী। কলার খোসা দিয়ে জুতো ঘষার পর একটি পরিষ্কার কাপড় দিয়ে মুছে নিন জুতা।
ফাটা গোড়ালি মেরামতে
কলার খোসায় থাকে হরেক রকমের আমাইনো অ্যাসিড। থাকে ভিটামিন এ, বি, সি এবং ই। শুষ্ক খসখসে ত্বক পুনরুজ্জীবিত করতে এই উপাদানগুলি ম্যাজিকের মতো কাজ করতে পারে। কয়েক দিন একটানা সময় করে কলার সাদা অংশ ঘষলে নিমেষেই নরম ও চকচকে হয়ে উঠতে পারে পায়ের গোড়ালি। প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার হিসেবেও বেশ কার্যকর কলার খোসা।
পোকা-মাকড়ের কামড়ে
মশা বা অন্য কোনো পোকার কামড়ে ফুলে ওঠা ত্বকে আরাম দিতে পারে কলার খোসা। এই টোটকাটি কিন্তু নতুন নয়, বহু আগে থেকেই পোকা মাকড়ের কামড়ে কাজে লাগান হত কলার খোসা। আসলে কলার খোসা পলিস্যাকারাইডে ভরপুর। মশার কামড়ের উপর এক টুকরো কলার খোসা ঘষলেই ফোলা ও প্রদাহ কমে যেতে পারে।

Lab Scan
ভাগ