হাসপাতালে মৃত অজ্ঞাত বৃদ্ধার মরদেহ পেল যশোর মেডিকেল কলেজ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যশোর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে মারা যাওয়া ৭০ বছর বয়সী বৃদ্ধার পরিচয় না পাওয়ায় তার মরদেহ যশোর মেডিকেল কলেজের গবেষণাগারে নেয়া হয়েছে। সেখানে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার কাজে লাশটি ব্যবহৃত হবে। মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. মো. জাহিদুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। গত ১২ মে রাত সাড়ে ৮টার সময় হতভাগ্য ওই বৃদ্ধাকে কে বা কারা শারীরিক দুর্বলতা জনিত রোগী হিসেবে এ হাসপাতালে ভর্তি করেন। এরপর মহিলা মেডিসিন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ছিলেন অজ্ঞাত নামা ওই বৃদ্ধা। স্বজনরা তারা খোঁজ না পাওয়ায় স্বাভাবিক সেবার পাওয়ার ক্ষেত্রে ত্রুটি ঘটে। দেখভাল করা কিংবা খোঁজ নেওয়ার কোন লোক ছিল না। ৮দিন পর ২১মে সকাল ৭টায় ওই বৃদ্ধা মৃত্যুবরণ করেন। তখন লাশ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়। হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স গীতা রানী রায় মৃত্যুর বিষয়টি যশোর কোতয়ালি মডেল থানায় জানানোর পর থানায় জিডি হয় এবং লাশের ময়না তদন্ত করার জন্য পুলিশ সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করেন। কিন্তু যশোর মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষের আবেদনের প্রেক্ষিতে ওই বৃদ্ধার লাশের ময়না তদন্ত না করে মেডিকেলের শিক্ষার্থীদের পড়ালেখা করার জন্য গবেষণাগারে নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। ওই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. মো. জাহিদুর রহমান গতকাল যশোর জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করেন। এ প্রেক্ষিতে কোতয়ালি মডেল থানার এসআই (নিঃ) জয়ন্ত সরকার তত্ত্বাবধায়ক বরাবর অবহিতকরণ প্রতিবেদন প্রেরণ করেন। এরপর গতকাল (বুধবার) অজ্ঞাতনামা ওই বৃদ্ধার লাশ যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে মর্গ থেকে মেডিকেল কলেজের মরচ্যুয়ারিতে নেয়া হয়।
এ ব্যাপারে যশোর মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ, প্রফেসর ডা. মো. জাহিদুর রহমানের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, লাশটি মেডিকেল করেজের শিক্ষার্থীদের পড়ালেখা করার জন্য এটি ব্যবহৃত হবে।

Lab Scan
ভাগ