হজে গিয়ে সৌদি আরবে ছয় বাংলাদেশির মৃত্যু

লোকসমাজ ডেস্ক॥ চলতি বছর পবিত্র হজপালনে সৌদি আরবে গিয়ে ছয়জন বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে জাহাঙ্গীর কবির (৫৯) ১১ জুন, নুরুল আমিন (৬৪) ১৬ জুন, রামুজা বেগম (৫৪), মো. হেলাল উদ্দিন মোল্লা (৬৩) ১৭ জুন এবং ২১ জুন আবদুল জলিল খান (৬২) ও বিউটি বেগম (৪৭) মারা যান।
ধর্ম মন্ত্রণালয়ের হজ ম্যানেজমেন্ট পোর্টাল পিলগ্রিমের ডেথ নিউজে এসব তথ্য জানা গেছে। ডেথ সার্টিফিকেট সংযুক্ত ও তারিখ উল্লেখ করে পোর্টালে বলা হয়, ‘আমরা অত্যন্ত দুঃখের সাথে জানাচ্ছি যে, উক্ত হাজী … তারিখে ইন্তেকাল করেন।’
পলগ্রিম সূত্রে জানা যায়, জাহাঙ্গীর কবিরের বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জের সদর উপজেলায়। তার পাসপোর্ট নম্বর অ০১০১২২২৮। তার গাইড ছিলেন মো. রফিকুল ইসলাম, মোয়াল্লেম রাবাহ ফুয়াদ আব্দুল্লাহ আকবর; নুরুল আমিনের বাড়ি নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে। তার পাসপোর্ট নম্বর ঊঋ০৭৫৮০০৬। তার গাইড ছিলেন মোহাম্মদ মাসুম, মোনাজ্জেম খন্দকার মোহাম্মদ আবু ছালেহ; রামুজা বেগমের বাড়ি কুমিল্লার আদর্শ সদরে। তার পাসপোর্ট নম্বর ইড০৮৪৩৩২৮। তার গাইড ছিলেন এসএম এনায়েত কবির, মোনাজ্জেম মুহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান এবং মো. হেলাল উদ্দিন মোল্লার বাড়ি জয়পুরহাটের সদর উপজেলায়। তার পাসপ্র্টো নম্বর ঊঊ০৩৮৫৩৭৬। তার গাইড ছিলেন শাহিদুল্লা, মোনাজ্জেম মিরাজুল ইসলাম; আবদুল জলিলের বাড়ি রংপুরের পীরগাছার তাম্বুলপুরে। তার পাসপোর্ট নম্বর ইঢ০৫৫২৬১৪। আর বিউটি বেগম রাজধানী ঢাকার কোতয়ালীর বাসিন্দা। তার পাসপোর্ট নম্বর ঊঅ০০০৯৫৮৪। তার গাইড মো. তোফাজ্জল হোসেন।
সৌদি আরেবের আইন অনুযায়ী, কোন ব্যক্তি হজ করতে গিয়ে যদি মৃত্যুবরণ করেন তাহলে তার মরদেহ সৌদি আরবে দাফন করা হয়। মৃতদেহ তার নিজ দেশে নিতে দেয়া হয় না। এমনকি পরিবার-পরিজনের কোনো আপত্তি গ্রাহ্য করা হয় না।
গত ৫ জুন থেকে হজযাত্রীদের ফ্লাইট শুরু হয়। সৌদি আরবে যাওয়ার শেষ ফ্লাইট ৩ জুলাই। হজ শেষে ফিরতি ফ্লাইট শুরু হবে ১৪ জুলাই এবং শেষ হবে ৪ আগস্ট। আগামী ৮ জুলাই চাঁদ দেখা সাপেক্ষে হজ অনুষ্ঠিত হবে।

Lab Scan
ভাগ