তালায় স্ত্রীর মামলায় কারাগারে স্বামী

 

তালা (সাতক্ষীরা) সংবাদদাতা ॥ তালায় ঘটনাস্থল পরিবর্তন দেখিয়ে প্রবাসী স্বামীর নামে সাতক্ষীরা জেলা ও দায়রা জজ আদালতে (নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল) মামলা দায়ের করেছেন স্ত্রী নাছিমা খাতুন (৩৪)। এই মামলায় স্বামী মতিয়ার রহমান (৩৭) গ্রেফতার হয়ে সাতক্ষীরা জেলা কারাগারে আছেন। স্বামী প্রবাশে থাকাকালীন এই মিথ্যা মামলা করার অভিযোগ উঠেছে।
প্রবাসীর বড় ভাই আতিয়ার রহমান জানান, প্রায় ২৩ বছর পূর্বে যশোর মণিরামপুর উপজেলার সতীঘাটা উত্তরপাড়া গ্রামের সামাদ মহলদারের মেয়ে নাছিমা খাতুনের সাথে একই উপজেলার পারখাজুরা গ্রামের মৃত আব্বাস বিশ্বাসের ছেলের সাথে বিয়ে হয়। প্রথম সন্তানের জন্মের পরে চাকরি নিয়ে সৌদিআরবে পাড়ি জমান মতিয়ার। এ বছরের মে মাসের ২২ তারিখে বিদেশ থেকে দেশে ফিরে আসেন।
তিনি জানান, ছোট ভাই বিদেশ থেকে ফেরার ১ মাস পূর্বে ছোট ভাইয়ের স্ত্রী নাছিমা খাতুন বাড়িতে রাখা ৪ ভরি সোনার গহনা, জমি বন্ধক রেখে ৬ লাখ ২৫ হাজার টাকাসহ ঘরের বিভিন্ন জিনিসপত্র নিয়ে পিতার বাড়িতে চলে আসেন। এ সমস্ত টাকা ও গহনা ফেরত দেবেন না বলে এ বছরের এপ্রিল মাসের ১১ তারিখে ঘটনাস্থল সাতক্ষীরার তালার ভায়ড়া গ্রামে ভাড়া বাসার ঠিকানা দিয়ে নাছিমা বেগম বাদী হয়ে স্বামী মতিয়ার রহমান ও তার ভাবি তহমিনা খাতুনের নামে সাতক্ষীরা জজ আদালতে মামলা দায়ের করেন।
প্রকৃতপক্ষে ভাড়া বাসা তার এক আত্মীয়ের। এই মামলায় প্রায় এক মাস কারাগারে রয়েছেন এই রেমিটেন্সযোদ্ধা।এদিকে মণিরামপুর উপজেলার ১০ নং মশ্মিমনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের প্রত্যয়নপত্র অনুযায়ী জানা যায়, প্রবাসী মতিয়ার রহমান এ বছরের ২২ মে সৌদিআরব থেকে দেশে ফিরেছেন।
এবিষয়ে জানতে চাইলে গ্রামের করিব হোসেন জানান, আমার খালু শ্বশুর বিদেশ থাকাকালীন তার বড়ভাই আতিয়ার রহমান ও ভাবি তাছলিমা খাতুন আমার খালা শাশুড়ি নাছিমা খাতুনকে ব্যাপক মারধর করেন। তারা প্রভাবশালী হওয়ার কারণে ঘটনাস্থল আমার বাড়ি দেখিয়ে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ সময় খালু শ্বশুর বাড়িতে ছিল কি না আমার জানা নেই।
তালা থানা ওসি আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান জানান, এ মামলাটির তদন্ত চলমান। সে কারণে এই কিছু বলা যাবে না।

Lab Scan
ভাগ