শ্রীপুরে স্কুলছাত্রীকে অপহরণের চেষ্টায় গণপিটুনিতে নিহত ১, আহত ২

শ্রীপুর(মাগুরা)সংবাদদাতা ॥মারার শ্রীপুর উপজেলার ছোনগাছা গ্রামে প্রেমঘটিত ঘটনায় গণপিটুনিতে একই উপজেলার বরিশাট গ্রামের আব্দুল জলিল শেখের ছেলে রাসেল শেখ (২৮) নিহত হয়েছেন।
আহত হয়েছেন একই গ্রামের আজ্জাত আলী জোয়াদ্দারের ছেলে মঞ্জুরুল জোয়াদ্দার (২৫) এবং রাজা মৃধার ছেলে রাজু মৃধা (২২)।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বরিশাট গ্রামের আজ্জাত আলীর ছেলে।
মঞ্জুরুল জোয়াদ্দারের নেতত্বে ৩টা মোটরসাইকেলে ৬জন যুবক দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ছোনগাছা গ্রামের দিদার মন্ডলের বাড়িতে প্রবেশ করে তার স্কুল পড়ুয়া মেয়ে আকলিমা খাতুন (১৪)- কে পরিবারের লোকজনদের সামনে জোরপূর্বক অপহরণের চেষ্টা করেন। মেয়েটি যেতে না চাইলে তাকে টেনে হেঁচড়ে কাপড় ছিঁড়ে ফেলে এবং আহত করে। মেয়েটিসহ পরিবারের লোকজনের চিৎকারে এলাকার লোকজন ঘটনাস্থলে দ্রুত ছুটে এসে অপহরণকারীদের মধ্যে ৩ জনকে ২টি মোটরসাইকেলসহ আটক করে। আটকের পর এলাকার বিক্ষুব্ধ লোকজন আটক করে বরিশাট গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে রাসেল(২৮), আজ্জাত আলীর ছেলে মঞ্জুরুল(২৫) ও একই গ্রামের রাজা মৃধার ছেলে রাজু(২২)-কে গণধোলাই দিয়ে আহত করেন। বিষয়টি উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক ও বরিশাট গ্রামের কাজী তারিকুল ইসলাম জানতে
পেরে ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদের আহত অবস্থায় উদ্ধার করে মাগুরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। ভর্তির পর রাসেলের অবস্থার অবনতি ঘটলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করেন। সেখানে রাসেল চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার সকালে তিনি মারা যান।
এ বিষয়ে নিহতের পিতা আব্দুল জলিল শেখ জানান, আমার ছেলে রাসেল ইজি বাইক চালাতো। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মঞ্জুরুল আমার ছেলেকে কিছু না বলে ছোনগাছা গ্রামে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে যাওয়ার পর ওই গ্রামের লোকজন আমার ছেলেকে মারধর করে মারাত্মক আহত করে। পরে ঢাকায় সে মারা যায়।