খড়কিতে দম্পতিকে মারধর-ভাঙচুর খড়কির সন্ত্রাসী ডিকুসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা

 

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যশোর শহরের খড়কি এলাকার কুখ্যাত সন্ত্রাসী দুই ডজন মামলার আসামি আক্তারুজ্জামান ডিকুসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে ভাঙচুর, মারধর ও অর্থ লুটের অভিযোগে গত শনিবার রাতে কোতয়ালি থানায় একটি মামলা হয়েছে। খড়কির শাহ আব্দুল করিম রোডের লুৎফর রহমানের স্ত্রী খাদিজা বেগম মামলাটি করেছেন।
আসামিরা হচ্ছেন-খড়কি বামনপাড়ার মতিয়ার রহমানের ছেলে আক্তারুজ্জামান ডিকু (৩২), খড়কি কলাবাগান পাড়ার রাজা ওরফে পিচ্চি রাজা (২২), খড়কির লাবলু ওরফে বুলেট (২৭), মাজেদের ছেলে স্যাকলাইন (২১), তরিকুল (৩৩), শামছুর ছেলে ফরিদ (২২) ও আলামিনের ছেলে ওমর (২৩)। এছাড়া মামলায় অজ্ঞাতনামা আরও ১০/১২ জনকে আসামি করা হয়েছে।
খাদিজা বেগমের অভিযোগ, উল্লিখিত আসামিরা বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজসহ মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। তারা এলাকায় ছিনতাই, চাঁদাবজি করে বেড়ান। খাদিজা বেগমের ছেলে খায়রুজ্জামান লিপ্টন (২৭) তাদেরকে এলাকায় এ ধরনের অপরাধমূলক কর্মকা- করতে নিষেধ করেন। এতে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে খুন জখমের ষড়যন্ত্র করতে থাকেন। গত ২৬ মে রাত নয়টার দিকে আসামিরা দা, লোহার রড ও লাঠি নিয়ে খাদিজা বেগমের বাড়িতে গিয়ে তার ছেলেকে খোঁজাখুঁজি করেন,গালিগালাজ করতে থাকেন। এরপর তারা ঘরের ভেতর ঢুকে আসবাবপত্র ভাঙচুর করেন। বাধা দেওয়ায় আসামি আক্তারুজ্জামান ডিকু এলোপাতাড়ি মারধর করেন খাদিজা বেগমকে। তার গলায় থাকা সোনার চেইন কেড়ে নেয়া হয়। বুলেট নামে আরেক আসামি শো-কেসের ড্রয়ার ভেঙ্গে ১ লাখ ১৫ হাজার টাকা লুট করে নেন। পরে আসামিরা বাড়ির সামনে অবস্থিত খাদিজা বেগমের স্বামী লুৎফর রহমানের দোকানে ঢুকে তাকে মারধর ও গলাটিপে হত্যার চেষ্টা চালান। দোকানের ক্যাশ ড্রয়ারে থাকা ২০ হাজার টাকা লুট করেন তারা। এক পর্যায়ে খাদিজা বেগমদের চিৎকার শুনে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে এলে আসামিরা হুমকি ধামকি দিয়ে চলে যান।

 

 

Lab Scan
ভাগ