যশোরে আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতির কাছে চাঁদাদাবি,আটক দুই জনের রিমান্ড মঞ্জুর

 

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যশোর জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাড. কাজী ফরিদুল ইসলামের কাছে চাঁদাদাবির মামলায় আটক দুই জনের ২ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। বৃহস্পতিবার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মো. মঞ্জুরুল ইসলাম শুনানি শেষে তাদের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। পুলিশ আদালতে তাদের ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানিয়েছিল।
আসামিরা হলেন-যশোর সদরের আরবপুর গোড়াপাড়ার আতিয়ার রহমানের ছেলে জাহিদুল ইসলাম ও ভায়না গ্রামের গোলাম মোস্তফার ছেলে মাহমুদুল ইসলাম।
মামলার বিবরণে জানা গেছে, গত ২৮ এপ্রিল রাত সাড়ে আটটার দিকে জেলা আইনজীবী সমিতির ১ নম্বর ভবনের দ্বিতীয় তলায় নিজ চেম্বারে বসেছিলেন কাজী ফরিদুল ইসলাম। এ সময় মাস্ক পরা ৩ যুবক চেম্বারে ঢুকে ঈদের খরচ বাবদ তার কাছে দুই লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। চাঁদার টাকা পরদিন ২৯ এপ্রিল দেওয়ার কথা বলে তারা চলে যান। এরপর ২৯ এপ্রিল তারা ফোন করলে কাজী ফরিদুল ইসলাম তাদেরকে রাত ৮টায় তার চেম্বারে আসতে বলেন। এরই মধ্যে কাজী ফরিদুল ইসলাম নেতৃবৃন্দকে অবহিত করে রাখলে তারা তার চেম্বারের সামনে অবস্থান নেন। কিন্তু রাত সাড়ে আটটার দিকে ওই যুবকেরা সেখানে এলেও অবস্থা বেগতিক দেখে সেখান সটকে পড়েন। এ ঘটনায় কাজী ফরিদুল ইসলাম অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে কোতয়ালি থানায় মামলা করেন। মামলায় তিনি চাঁদাবাজদের মোবাইল ফোন নম্বর ও মোটরসাইকেলের নম্বর উল্লেখ করেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই শরীফ আল মামুন আইনজীবী সমিতি ভবনে থাকা সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করে শনাক্তের পর জড়িতদের একজন জাহিদুলকে আটক করেন। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কুইন্স হসপিটালের সামনে থেকে তাকে আটক করা হয়। পরে তার স্বীকারোক্তিতে গভীর রাতে নিজ বাড়ি থেকে মাহমুদুলকে আটক করে পুলিশ। আটকের পর ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানিয়ে আদালতে সোপর্দ করা হয়। বৃহস্পতিবার আদালত রিমান্ড আবেদনের শুনানি শেষে তাদের ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

Lab Scan
ভাগ