রূপদিয়ার ব্যবসায়ী ও তার ভাইকে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার ঘটনায় মামলা,৬ জন আসামি

 

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যশোর সদর উপজেলার রূপদিয়া বাজারের ব্যবসায়ী খন্দকার মাহমুদুর রহমান ও তার ভাই খন্দকার মো. মাসুদুর রহমানকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টার ঘটনায় মঙ্গলবার সকালে কোতয়ালি থানায় মামলা হয়েছে। ৬ জনকে আসামি করে মামলাটি করেছেন হামলায় আহত খন্দকার মো. মাসুদুর রহমান। তিনি নরেন্দ্রপুর গ্রামের খন্দকার আব্দুস সাত্তারের ছেলে।
আসামিরা হলেন-সদর উপজেলার জিরাট গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে গোলাম হোসেন (৪৫), মো. লুৎফর রহমানের ছেলে মো. সুমন হোসেন (৩২), নুর আলীর ছেলে সোহেল রানা (৩০), কটা মনিরের ছেলে শহিদুল (২৮), একই গ্রামের মাসুদ (৪৫) ও চাউলিয়া গ্রামের মুন্না (২৮)। এছাড়া মামলায় অজ্ঞাতনামা আরও ২/৩ জনকে আসামি করা হয়েছে।
খন্দকার মো. মাসুদুর রহমান মামলায় উল্লেখ করেছেন, তার ছোটভাই মাহমুদুর রহমান গার্মেন্টেসের ব্যবসা করেন। উল্লিখিত আসামিদের মধ্যে গোলাম হোসেনের রূপদিয়া বাজারে শাওন প্লাজা নামক একটি মার্কেট রয়েছে। মাহমুদুর রহমান অগ্রিম আড়াই লাখ টাকা জামানত দিয়ে আসামি গোলাম রহমানের কাছ থেকে মার্কেটের একটি দোকান ভাড়া নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিলেন। কিন্তু ব্যবসা ভালো না হওয়ায় দেড় বছর পূর্বে মাহমুদুর রহমান ওই দোকানঘর ছেড়ে দেন। কথা ছিলো দোকানঘর ছেড়ে দেওয়ার ১৫ দিনের মধ্যে গোলাম হোসেন জামানতের টাকা ফেরৎ দিবেন। কিন্তু গোলাম হোসেন জামানতের টাকা ফেরৎ না দিয়ে কালক্ষেপণ করতে থাকেন। এক পর্যায়ে গোলাম হোসেন ৪০ হাজার টাকার একটি ব্যাংক চেক দেন মাহমুদুর রহমানকে। পরে মাহমুদুর রহমান চেকটি সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে নিয়ে গেলে কর্তৃপক্ষ জানায়, গোলাম হোসেনের হিসাব নম্বরে কোনো টাকা নেই। বিষয়টি গোলাম হোসেনকে জানিয়ে তার কাছে নগদ টাকা দাবি করেন মাহমুদুর রহমান। কিন্তু গোলাম হোসেন টাকা না দিয়ে তাকে নানাভাবে ঘোরাতে থাকেন। গত ২০ মে রাত সাড়ে সাতটার দিকে মাসুদুর রহমান ও মাহমুদুর রহমান রূপদিয়া বাজারের শাওন প্লাজায় আসামি গোলাম হোসেনের অফিসে গিয়ে তার কাছে ৪০ হাজার টাকা ফেরৎ চান। এ নিয়ে সেখানে দু’পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। পরে দুই ভাই থেকে সেখান থেকে চলে আসেন এবং তাদের নিজেদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে যান। এরপর মামলার অপর আসামি সুমন হোসেন তাদের দোকানের সামনে গিয়ে তারা কখন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করবেন তা জানতে চান। জবাবে দুই ভাই তাকে জানান, কিছুক্ষণ পর তারা দোকান বন্ধ করবেন। এ ঘটনার পর রাত ১০ টার দিকে দোকান বন্ধ করে দুই ভাই মাসুদুর রহমান ও মাহমুদুর রহমান একটি মোটরসাইকেলে করে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হন। পথে জিরাট গ্রামের আরসিসি রাস্তার ঢালু স্থানে পৌঁছালে আসামি গোলাম হোসেনের নির্দেশে অপর আসামিরা আচমকা মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে তাদের ওপর হামলা চালান। এ সময় তারা ধারালো অস্ত্র দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে মাসুদুর রহমান ও মাহমুদুর রহমানকে কুপিয়ে জখম করেন। এছাড়া আসামিরা মাসুদুর রহমানের পকেটে থাকা ব্যবসার ১ লাখ ১৫ হাজার টাকা কেড়ে নেন। পরে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে এলে আসামিরা হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যান। এ ঘটনার পর স্থানীয় লোকজন গুরুতর আহত দুই ভাইকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান।
এ ব্যাপারে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নরেন্দ্রপুর পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই নাজমুল হাচান বলেন, ‘আজ একটি মামলা দায়ের হয়েছে বলে শুনেছি। কিন্তু এখনো পর্যন্ত আমি মামলার কপি হাতে পাইনি।’

Lab Scan
ভাগ