তালায় গো-খাদ্যের দাম বাড়ায় বিপাকে খামারিরা

 

সেলিম হায়দার,তালা (সাতক্ষীরা) ॥ সাতক্ষীরার তালায় গো-খাদ্য ছোলা, ভুট্টা, ভূষি, ফিড ও খড়ের দাম হঠাৎ বৃদ্ধি পাওয়ায় বিপাকে পড়েছে খামারিরা। গত সপ্তাহে যে ভূষির দাম ছিলো বস্তাপ্রতি ১ হাজার৫৫০ টাকা তা ৩৫০ টাকা বেড়ে ১হাজার ৯০০ টাকায় গিয়ে ঠেকেছে। ৩ হাজার টাকার খৈল ৫০০ টাকা বস্তায় বৃদ্ধি পেয়ে সাড়ে ৩ হাজার টাকা হয়েছে। এমনভাবে প্রায় সব গো-খাদ্যে বস্তা প্রতি ৩০০ থেকে ৬০০ টাকা বেড়েছে বলে জানিয়েছেন বাজার ব্যবসায়ী ও খামারিরা।
সরজমিনে তালা উপজেলার হরিশচন্দ্রকাটি, ঘোনা, গঙ্গারামপুর, জেয়ালা ঘোষ পড়া, মহান্দি, ইসলামকাটি, জালালপুর এলাকার খামারিও ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, গো খাদ্যের বাজার অস্থিতিশীল হওয়ায় সামনের কোরবানি ঈদের গরুর হাটগুলোতে এর প্রভাব পড়তে পারে।
তালা উপজেলা প্রাণী সম্পদ অফিস সূত্রে জানা যায়, সরকারি হিসেব মতে ৩ হাজার ৭৫৬ টি গরুর খামারে বছরে প্রায় ৫০ হাজার মেট্রিক টন দুধ উৎপাদিত হয়।
এ খামারগুলোর বাইরেও বেসরকারি হিসেব মতে উপজেলায় এক লাখ ৯৫০ টি দেশি ষাড় গরু, ৫৭ হাজার ৬৯ টি সংকর জাতীয় গরু রয়েছে। এছাড়া দেশি গাভী ২৫ হাজার ২০ টি, সংকর জাতীয় গাভী ৪০ হাজার ৬৪০ টি, অন্যান্য জাতের ২হাজার ৫৯০ টি গরু রয়েছে এবং ১১ টি মহিষ রয়েছে।
তালার হরিশ্চন্দ্রকাঠির খামারি সত্যরঞ্জন ঘোষ জানান, তার খামারে চল্লিশটি গরু-গাভী রয়েছে। খইল, ভূষি, কুড়ার দাম অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। এখন খামারের জন্যে কী করবেন বুঝতে পারছেন না। শুধু তিনি নন, তার মতো অন্য খামারি, আলেক, সত্যরঞ্জন, সাইফুল সবারই একই কথা। তারা গো-খাদ্যের দাম তাড়াতাড়ি কমিয়ে দেওয়াসহ বাজার স্থিতিশীল করার জন্যে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানান।
তালা বাজারের গরু খামারি অসিম রায় বলেন, গো খাদ্যের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় তাদের মত অল্প পুঁজির খামারিরা এখন কষ্টে আছেন। গরু খাওয়াতে না পারলে কোরবানিতে ভাল দামে বিক্রি করতে পারা যাবে না।
উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মাছুম বিল্লাহ জানান, হঠাৎ গো-খাদ্যের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় খামারিরা হতাশ হয়ে পড়েছেন। বর্তমানে তারা বিকল্প হিসেবে ঘাসের ব্যবহার বাড়িয়েছেন। তিনি বলেন, ‘আমরা আশা করছি দ্রুত বাজারে একটা স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসবে। তখন খামারিদের হতশাও কেটে যাবে’।

 

Lab Scan
ভাগ