যথাযোগ্য মর্যাদায় চুকনগরে গণহত্যা দিবস পালিত

 

ডুমুরিয়া (খুলনা) সংবাদদাতা॥ খুলনার চুকনগরে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে ‘চুকনগর গণহত্যা দিবস’। দিবসটি পালন উপলক্ষে শুক্রবার দিনব্যাপী সরকারি, বে-সরকারি বিভিন্ন সংস্থা ও সংগঠন বিস্তারিত কর্মসূচি পালন করে। কর্মসূচির মধ্যে ছিল জাতীয় পতাকা উত্তোলন, পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
দিবসটি উপলক্ষে সন্ধ্যায় বধ্যভ’মি চত্বরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। চুকনগর গণহত্যা-৭১স্মৃতিরক্ষা পরিষদের সভাপতি অধ্যক্ষ এবিএম শফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সাবেক মন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপি। তিনি বলেন, চুকনগর গণহত্যা পৃথিবীর ইতিহাসে এক বর্বোরোচিত ঘটনা। মহান মুক্তি যুদ্ধে ৩০ লক্ষ শহীদের মধ্যে চুকনগরেই ১০ হাজার মানুষকে ৩/৪ ঘন্টার মধ্যে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। স্বাধীনতার ৫১ বছরে কোনো স্বীকৃতি মেলেনি ঠিকই,তবে সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় চুকনগর গণহত্যাকে আন্তর্জাতিক ভাবে স্বীকৃতি পাওয়া সম্ভব।
এর আগে কর্মসূচির শুরুতে চুকনগর গণহত্যা-৭১ স্মৃতি বধ্যভ’মিতে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। এরপর এক এক করে স্মৃতি স্তম্ভে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে চুকনগর গণহত্যা-৭১ স্মৃতিরক্ষা পরিষদ, আমরা-৭১ ঢাকা, খুলনা জেলা প্রশাসন, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুন্যালের চিফ ইনভেস্টিগেটর সাবেক আইজিপি এম সানাউল হক, খুলনা মহানগর বঙ্গবন্ধু পরিষদ, ডুমুরিয়া উপজেলা পরিষদ, ডুমুরিয়া উপজেলা প্রশাসন, ডুমুরিয়া থানা, ডুমুরিয়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড, ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি, চুকনগর ডিগ্রি কলেজ, তালার শহীদ মুক্তিযোদ্ধা মহাবিদ্যালয়, চুকনগর প্রেসক্লাব, আটলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ, ইউনিয়ন যুবলীগ, তালা উপজেলা নাগরিক কমিটি, কাঠাঁলতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।
এরপর সকাল ১১টায় যে স্থানে গণহত্যায় নিহতদের লাশ ভাসিয়ে দেয়া হয়েছিল সেই ভদ্রা নদীর ব্রিজের উপর দাঁড়িয়ে ভদ্রা নদীতে লাল পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করা হয়। সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ ও আলোচনা হয়। শেষে এরপর উদীচী যশোরের আয়োজনে সাউন্ড এন্ড লাইট শো ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।
সমস্ত কর্মসূচিতে বিভিন্ন পর্যায়ে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, চুকনগর গণহত্যা-৭১ স্মৃতিরক্ষা পরিষদের সভাপতি অধ্যক্ষ এবিএম শফিকুল ইসলাম, চুকনগর কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মনিরুল ইসলাম ব্রাউন, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুন্যালের চিফ ইনভেস্টিগেটর সাবেক আইজিপি এম সানাউল হক, আমরা-৭১ ঢাকার সংগঠক মাহাবুব জামান, শওকত হোসেন, সাংবাদিক বিভ’রঞ্জন সরকার, জয়ন্তী রায়, সাংবাদিক মাহফুজা, মোস্তাফিজুর রহমান, ইমতিয়াজ হেলাল ফয়েজি, আজিজুল হক মনি, দৈনিক কল্যাণ সম্পাদক একরাম-উদ-দ্দৌলা, খুলনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্কেল-বি) মোস্তাফিজুর রহমান, ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার শরীফ আসিফ রহমান, ডুমুরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ কনি মিয়া, খুলনা মহানগর আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শ্যামল সিংহ রায়, উদীচী যশোরের সভাপতি মাহাবুবুর রহমান মজনু, সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাতুর রহমান বিপ্লব প্রমুখ।