যশোর সদর হাসপাতালে ৩ মাসে ৬৮ শিশুর মৃত্যু

বিএম আসাদ ॥ যশোরে অপুষ্টিজনিত শিশু জন্মলাভ করছে। আর জন্মলাভ করার পরপরই তাদের মৃত্যু হচ্ছে। গত তিন মাসে যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে ৬৮ জন শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে অনেকেই অপুষ্টি নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। এ অবস্থায় আগামীকাল ২৩ এপ্রিল হতে শুরু হচ্ছে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ। সকাল সাড়ে ১০টায় কালেক্টরেট সভাকক্ষে জেলা পুষ্টি কমিটির সভা ও আলোচনা শেষে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহের উদ্বোধন করা হবে।
যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের এক পরিসংখ্যানে জানা গেছে, চলতি বছরের প্রথম ৩ মাসে ১ হাজার ৯শ ৪৯ শিশু হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এর ভেতর চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৬৮ শিশু মারা গেছে। হাসপাতালের সূত্রে জানা গেছে, গত মার্চে হাসপাতালে ৫শ ৮৭ শিশু ভর্তি হয়েছে। এর মধ্যে মারা গেছে ১৯ জন শিশু। এর আগে ফেব্রুয়ারিতে ৬শ ৫৯ জন শিশু ভর্তি হয়। মারা যায় ২৩ জন। জানুয়ারিতে ভর্তি হওয়া ৭শ ৩ শিশুর ভেতর ২৬ জন মারা যায়। হাসপাতালে মৃত শিশুদের বেশির ভাগই অপুষ্টিজনিত। পুষ্টির অভাবে জন্মগত ত্রুটি থাকায় তাদের মৃত্যু হয়েছে। এদের বয়স এক ঘন্টা থেকে ৭২ ঘন্টা পর্যন্ত। কিছু শিশুর বয়স আরো বেশি। যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের শিশু বিভাগের প্রধান যশোর মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক ডা. মো. মাহাবুবুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেছেন, শিশুদের অপুষ্টি নিয়ে জন্মলাভ করার পিছনে বেশ কয়েকটি কারণ থাকে। তার ভেতর গর্ভাবস্থায় মায়েরা অনেক সময় পুষ্টি সমৃদ্ধ খাবার খায় না। সতর্কতা অবলম্বন করে না। যে কারণে গর্ভাবস্থায় শিশুদের পুষ্টির অভাবে দেখা দেয়। এর ফলে নানান ধরনের ত্রুটি নিয়ে অসুস্থ অবস্থায় শিশু জন্ম নেয়। চিকিৎসকের দৃষ্টিতে তাদের জন্মগত ত্রুটি বা অপুষ্টি হিসেবে ধরা হয়। যশোরে এখনো জন্মগ্রহণ করছে অপুষ্টি শিশু। এ অবস্থায় দেশের অন্যান্য স্থানের ন্যায় যশোরে আগামী ২৩ এপ্রিল থেকে শুরু হচ্ছে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ। চলবে ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত। চিকিৎসক ও অভিভাবকরা আশা করেন, আগামীতে অপুষ্টিজনিত মৃত্যুহার কমবে, সচেতনতা বাড়বে।