পাকিস্তানের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে যার নাম বেশি উচ্চারিত হচ্ছে

লোকসমাজ ডেস্ক॥ পাকিস্তানের রাজনীতিতে এই মুহূর্তে টালমাটাল অবস্থা বিরাজ করছে। অনাস্থা ভোটের মুখে ক্ষমতা নিয়ে খাদের কিনারে ইমরান খান। এই পরিস্থিতিতে পাকিস্তানের আগামী প্রধানমন্ত্রী হিসাবে সবচেয়ে এগিয়ে রয়েছেন শেহবাজ শরীফ। যিনি কিনা পাকিস্তান জাতীয় সংসদে বিরোধী দলনেতা হিসাবে রয়েছেন।  গত ৩০ মার্চ ইমরান খানের বিরুদ্ধে অনাস্থা নিয়ে আসে বিরোধীরা। এমনকি সংখ্যাগরিষ্ঠতাও হারিয়েছেন তিনি। কিন্তু এরপরেও ইমরান খানের স্পষ্ট হুঁশিয়ারি, তিনি ইস্তফা দেবেন না। এই অবস্থায় টলমল পাকিস্তানের রাজনীতি। কিন্তু এই অবস্থায় সরকার বদল হলে বিপক্ষে থাকা শেহবাজ শরীফ আসলে কে?
জানা গেছে, শেহবাজ শরীফ পিএমএল-এমের প্রেসিডেন্ট যিনি তার ভাই নওয়াজ শরীফের স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন। পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ দেশটিতে দুটি দুর্নীতির মামলায় দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর থেকে লন্ডনে বসবাস করছেন। শেহবাজ শরীফ বর্তমানে পাকিস্তানের নিম্নকক্ষ জাতীয় পরিষদের বিরোধী নেতা। তিনি পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের সবচেয়ে দীর্ঘকালীন মুখ্যমন্ত্রী। শেহবাজ তিনবার এই পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৯৭ সালে প্রথমবারের মতো পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী হন। কিন্তু ১৯৯৯ সালে জেনারেল পারভেজ মোশাররফের হাতে অভ্যুত্থানের পর, তাকে পাকিস্তান ছাড়তে হয়। পরবর্তী আট বছর সৌদি আরবে নির্বাসনে কাটাতে হয়েছিল শেহবাজ শরিফকে। এরপর শেহবাজ শরীফ ও তার ভাই ২০০৭ সালে পাকিস্তানে ফিরে আসেন। এর পর তিনি আবার পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী হন এবং তার দল ২০০৮ সালে সাধারণ নির্বাচনে জয়লাভ করে। ২০১৩ সালে তৃতীয়বারের মতো পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে মেয়াদ শুরু হয় এবং ২০১৮ সালের নির্বাচনে পিএমএল-এনের পরাজয়ের আগ পর্যন্ত তিনি পূর্ণ মেয়াদের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। ২০১৮ সালের নির্বাচনের পর শেহবাজ শরীফকে বিরোধী দলীয় নেতা হিসেবে মনোনীত করা হয়। এদিকে, চলমান রাজনৈতিক সংকটের মধ্যেই আশা দেখছে বিরোধীরা। পিপিপি নেতা বিলাওয়াল ভুট্টো আগেই জানিয়েছেন, শেহবাজ শরীফকে তারা প্রধানমন্ত্রী বানাবেন। মুসলিম লিগ-এনের নেত্রী মরিয়ম নওয়াজ শরীফও বলেছেন, ইনশাআল্লাহ প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন শেহবাজ শরীফ।
সূত্র : আল জাজিরা।

Lab Scan
ভাগ