সনাকের সভায় বক্তাদের অভিমত: নানা সমস্যার পরও সরকার করোনা মোকাবেলা করতে সক্ষম হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) যশোর আয়োজিত সভায় বক্তারা বলেছেন, বৈশিক করোনা পরিস্থিতিতে মানুষকে সুরক্ষার জন্য নানা সমস্যা ছিল। তার মধ্যেও সরকার পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে সক্ষম হয়েছে। টিকাদান কেন্দ্রে ছিল অব্যবস্থাপনা সামাজিক দূরত্ব না মানা। ছিল কেন্দ্রের পরিবেশ। গতকাল (মঙ্গলবার) প্রেসক্লাব যশোরের দ্বিতীয়তলায় এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সনাক যশোরের কো-অর্ডিনেটর মো. ফিরোজ উদ্দিন, টিকাদান কেন্দ্রে টিকা গ্রহীতাদের মতামত সম্বলিত তথ্য উপাত্ত উপস্থাপন করেন।
তিনি বলেন, করোনা টিকা নেয়ার জন্য নিবন্ধন করার পর শতকরা ৬ দশমিক ১৯ শতাংশ মানুষ ১৫ দিনের মধ্যে এসএমএস পেয়েছেন, ১ দশমিক ৪৩ শতাংশ মানুষ ৩০ দিনে এবং ১শ’ ২০ দিনে এসএমএস পেয়েছেন। দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন অধিকাংশ মানুষ। অল্প কিছু ৪ দশমিক ৭২ শতাংশ ৬০ দিনের মধ্যে এসএমএস পেয়েছেন। ৯৫ দশমিক ৫৬ শতাংশ টিকাদানের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে জানেন। ৩৭ দশমিক ৭৮ শতাংশ সেবা গ্রহীতার টিকার পার্শ্ববর্তী ক্রিয়া সম্পর্কে ধারণা আছে। টিকাদান কেন্দ্রে অব্যবস্থাপনার মধ্যে সবচেয়ে বেশি মানুষ অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, সকল বুথ খোলা না ও সামাজিক দূরত্ব না মানার কথা উঠে এসেছে সনাকের অনুসন্ধানে। উপজেলা পর্যায়ের হাসপাতাল থেকে তথ্য নিলেও সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়েছে যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল।
এসব সমস্যার সমাধানেও সুপারিশ হিসেবে টিকা দানের বিষয়টি আরও সহজলভ্য করার কথা বলা হয়েছে। তথ্য উপস্থাপনের পর উপস্থিত অতিথিবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। তারা বলেন, করোনা মহামারী পরিস্থিতিতে মানুষকে সুরক্ষার জন্য সরকারের পদক্ষেপ সফল হয়েছে।
সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) যশোরের সভাপতি শাহিন ইকবাল সভায় সভাপতিত্ব করেন। যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. আক্তারুজ্জামান প্রধান অতিথি, ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. নাজমুস সাদিক, শিল্পকলা একাডেমির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. মাহমুদ হাসান বুলু বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন প্রফেসর ড. মোস্তাফিজুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাড. সালেহা খাতুন, বাসদ নেতা হাসিনুর রহমান, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব হারুন-অর-রশিদ, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ফারাজী আহমেদ সাঈদ বুলবুল, সাংবাদিক সাজেদ রহমান, লেখক ও কবি কাসেদুজ্জামিান সেলিম, সাংবাদিক এইচআর তুহিন, মনিরুল ইসলাম প্রমুখ।

Lab Scan
ভাগ