শৈলকুপায় জাল সনদে ৯ বছর শিক্ষকতা, আদালতে মামলা

শৈলকুপা (ঝিনাইদহ) সংবাদদাতা ॥ শৈলকুপার কাতলাগাড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ২০১১ সালে কম্পিউটার শিক্ষক হিসাবে যোগদান করেন রিক্তা পারভীন। তবে তার শিক্ষক নিবন্ধন ছিল জাল। প্রধান শিক্ষক এই জাল নিবন্ধনের ব্যাপারে মামলা করেছেন ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০১৩ সালে স্বামীর জোগাড় করা জাল সনদে এমপিওভুক্তি হন রিক্তা পারভীন। এমপিওভুক্তির পর স্বামীর সাথে সম্পর্কের অবনতি হওয়ায় গলার কাঁটা হয়ে দাড়ায় চাকরি। দীর্ঘ এক দশক পরে বিভিন্ন মহলে ঘটনাটি জানাজানির পর এনটিআরসির পুনরায় সনদ যাচাইয়ে কাতলাগাড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কম্পিউটার শিক্ষক রিক্তা পারভীনের সনদটি জাল বলে প্রমাণিত হয়। রিক্তা পারভীন কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার দক্ষিণ ভবানীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জয়নাল আবেদিনের স্ত্রী ও একই উপজেলার তেবাড়িয়া গ্রামের আক্তার হোসেনের কন্যা। সনদ জালের ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের জন্য নির্দেশনা দেন এনটিআরসি কর্তৃপক্ষ। সেই মোতাবেক ঝিনাইদহ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেন ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক। কাতলাগাড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জিল্লুর রহমান জানান, ২০১১সালের ২৪ জুলাই কম্পিউটার শিক্ষক হিসাবে নিয়োগ পান কুমারখালি উপজেলার তেবাড়িয়া গ্রামের আক্তার হোসেনের কন্যা রিক্তা পারভীন। সে সময় তিনি শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার একটি সনদ উপস্থাপন করেন। এ সনদ দিয়ে তিনি ২০১৩ সালে এমপিওভুক্ত হন। তখন থেকেই তিনি সরকারি সুযোগ সুবিধা পেয়ে আসছেন। কিন্ত বিভিন্ন অভিযোগের প্রেক্ষিতে এনটিআরসির পুনরায় সনদ যাচাইয়ে দেখা যায় রিক্তা পারভীনের সনদটি যথাযথ কর্তৃপক্ষের না। এরপরএনটিআরসি কর্তৃপক্ষ স্কুল কর্তৃপক্ষকে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়েরের জন্য নির্দেশনা দেন। গত ১৪মার্চ ঝিনাইদহ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা করা হয়। তবে এ ঘটনার পর চাকরি থেকে অব্যাহতি নিয়েছেন অভিযুক্ত শিক্ষক। ভুয়া সনদে চাকরির বিষয়ে রিক্তা পারভীন বলেন, তিনি শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা দিয়েছিলেন। এরপর তার স্বামী তার একটি সার্টিফিকেট এনে দেন। সেটা ভুয়া ছিল কিনা তা তিনি বলতেপারেন না। তবে বর্তমানে স্বামীর সাথে তার সম্পর্কের অবনতি বলে তিনি স্বীকার করেন। ভুয়া সনদে চাকরি নিয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শামীম আহমেদ খান বলেন, তিনি সে সময়ে অন্য কর্মস্থলে চাকরি করতেন, এ কারণে বিষয়টি নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

Lab Scan
ভাগ