৩ শর্তে লেকহেড স্কুলের পরিচালক খালেদের জামিন

লোকসমাজ ডেস্ক॥ অর্থপাচারের অভিযোগে মানি লন্ডারিং আইনে করা মামলায় রাজধানীর গুলশানের লেকহেড গ্রামার স্কুলের পরিচালক খালেদ হাসান মতিনকে শর্তসাপেক্ষে জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। জামিনে থাকাকালীন পাসপোর্ট জমা, আদালতের অনুমতি ছাড়া বিদেশে না যাওয়া এবং লেকহেড গ্রামার স্কুলের টাকা অন্যত্র ট্রান্সফার না করা- এ তিন শর্তে খালেদ মতিনকে জামিন দিয়েছেন আদালত। আসামির জামিন আবেদনের শুনানি নিয়ে বুধবার (৫ ডিসেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হকের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ রায় দেন। আদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক। এদিন আদালতে জামিন আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী আহসানুল করিম। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল আন্না খানম কলি ও মো সাইফুর রহমান সিদ্দিকী। ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আমিন উদ্দিন মানিক সাংবাদিকদের জানান, পাসপোর্ট জমা, আদালতের অনুমতি ছাড়া বিদেশে না যাওয়া এবং লেকহেড গ্রামার স্কুলের টাকা অন্যত্র ট্রান্সফার করতে পারবে না- শর্তে খালেদ হাসান মতিনকে জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। তবে এ বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল করবে।
খালেদ হাসান মতিনের বিরুদ্ধে তিন কোটি তিন লাখ টাকা অর্থপাচারের অভিযোগে ২০২০ সালের ২ নভেম্বর গুলশান থানায় মামলা করে সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইম (ফিন্যান্সিয়াল ক্রাইম) ইউনিট। ইউনিটের পরিদর্শক মো. মনিরুজ্জামান বাদী হয়ে এ মামলা করেছিলেন। ওই মামলায় জামিন চেয়ে তিনি হাইকোর্টে আবেদন জানান। গত কয়েক বছরে নানা অপকৌশলে জঙ্গিবাদে অভিযুক্ত রাজধানীর বনানীর লেকহেড গ্রামার স্কুলের বিপুল পরিমাণ অর্থ ভিন্ন খাতে পাচার করা হয়েছে। তদন্ত করে সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইম (ফিন্যান্সিয়াল ক্রাইম) ইউনিট এ তথ্য উদঘাটন করে। এ ঘটনায় লেকহেড গ্রামার স্কুলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক খালেদ হাসান মতিনের বিরুদ্ধে মামলা হয়। এতে তার মালিকানাধীন বনানীস্থ আর এম গ্রুপেরও সম্পৃক্ততার অভিযোগ রয়েছে। তবে মামলার এজাহারে সিআইডি ইন্সপেক্টর মনিরুজ্জামান জানান, তথ্য অনুসন্ধান ও বিশ্লেষণে লেকহেড গ্রামার স্কুল কর্তৃপক্ষের জঙ্গিবাদ কিংবা সন্ত্রাসী কার্যক্রমে অর্থায়নের সরাসরি কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

Lab Scan
ভাগ