পাইকগাছা পৌর এলাকায় বিলীন হওয়া মধুমিতা পার্কের অস্তিত্ব ফেরাতে নেয়া হচ্ছে উদ্যোগ

জি.এম. মিজানুর রহমান, পাইকগাছা (খুলনা) ॥ পাইকগাছা পৌরসভায় আশির দশকে প্রতিষ্ঠিত ‘মধুমিতা পার্ক’ এর অস্তিত্ব ফিরিয়ে আনতে সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে পার্কের প্রায় সব কিছুই বিলীন হয়ে গেছে।
উপজেলা সদরে পৌর শহরের প্রাণ কেন্দ্রে অবস্থিত পুকুরটির নাম মিষ্টি পুকুর। বৃটিশ আমলে পানীয় জলের চাহিদা মেটানোর জন্য পুকুরটি খনন করা হয়। শেখ, কাগজী ও হিন্দু সম্প্রদায়ের ব্যক্তিদের দান করা ৬ বিঘা জমিতে এর অবস্থান। বিনোদন বা অবসরে আড্ডা দেয়ার মত তেমন কোনো পরিবেশ না থাকায় আশির দশকে তৎকালীন জেলা প্রশাসক নুরুল ইসলাম পুকুরের চার পাশে পার্ক গড়ে তোলেন।
নামকরণ করা হয় ‘মধুমিতা পার্ক’। পার্কে বসার বেঞ্চ, দোলনাসহ বিনোদনের সবকিছু সুরক্ষিত ছিল। চারপাশে উচ্চ প্রাচীর দিয়ে বেষ্টিত ছিল। ছিল পাকা রাস্তা। বর্তমানে পার্কের ২/১টি বেঞ্চের অস্তিত্ব থাকলেও তা বসার অনুপযোগী। প্রাচীরের বড় একটি অংশ নষ্ট হয়ে গেছে। সে সময় নলকূপ না থাকায় পুকুর বা পাতকুয়াই ছিল একমাত্র পানীয় জলের ভরসা। আজও পৌর সদরে এ পানি হোটেল রেস্টুরেন্টে ব্যবহার হয়ে আসছে। পুকুরটি খননের পর সম্প্রতি সংস্কার করেছেন জেলা পরিষদ সদস্য শেখ কামরুল হাসান টিপু। তিনি বলেন, মধুমিতা পার্কটি পুনরায় গড়ে তুলতে জেলা পরিষদের পরবর্তী সভায় কার্যকরী পদক্ষেপ নেয়া হবে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী বলেন, ‘আমি শুনেছি এখানে মধুমিতা নামে একটা পার্ক ছিল। যেহেতু জেলা পরিষদের জায়গা, তাই তারা সেখানে আবারও পার্কের কাজ করলে আমার দিক দিয়ে সহযোগিতার যা যা করার প্রয়োজন সেটুকু করা হবে।’

Lab Scan
ভাগ