খেলার খবর

দলের ওপর চাপ কমাতে বললেন মাশরাফি
স্পোর্টস ডেস্ক॥ দলে এখন জায়গা নেই, বাংলাদেশের নিউ জিল্যান্ড সফরে তাই এবার নেই মাশরাফি বিন মুর্তজা। তবে সেখানে খেলার অভিজ্ঞতা তো তার কম নয়! তাই ভালো করেই জানেন, কন্ডিশন কতটা কঠিন। তারপরও দল ভালো করতে পারে বলে মনে করছেন বাংলাদেশের সফলতম ওয়ানডে অধিনায়ক, যদি না চাপিয়ে দেওয়া হয় অপ্রয়োজনীয় চাপ। বাংলাদেশের সবশেষ নিউ জিল্যান্ড সফরে ওয়ানডে অধিনায়ক ছিলেন মাশরাফিই। সময়ের পরিক্রমায় এখন বদলে গেছে চিত্র। নেতৃত্ব ছাড়ার পর আর দলে নেওয়া হয়নি তাকে। তবে দলে না থাকলেও এই দলকে তো তিনি চেনেন পুরোটাই। জানেন দলের চরিত্রও। শুক্রবার মাশরাফি গিয়েছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে, একটি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনালে অতিথি হয়ে। সেখানেই সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে কথা বললেন নিউ জিল্যান্ড সফরে বাংলাদেশ দলের সম্ভাবনা নিয়ে। “আমরা সবাই জানি, নিউ জিল্যান্ড খুবই কঠিন। সঙ্গে সাকিব নেই, খুবই কঠিন হবে। তবে যাওয়ার আগে যে মানসিকতা ওরা দেখিয়েছে, যেভাবে কথা বলেছে, সেসব খুবই ইতিবাচক। আমার বিশ্বাস, দল ভালো করবে। কিন্তু, আমার মনে হয় না দলকে অপ্রয়োজনীয় চাপ বেশি দেওয়া উচিত।” “সবাই জানি কঠিন কন্ডিশন। আমরা যদি এখান থেকে ভালোভাবে সমর্থন দেইৃসমর্থনের বিভিন্ন ধরন আছে। ওই চাপ থেকে যদি ওদের মুক্ত করে দেই, তাহলে আমি নিশ্চিত যে ওরা ভালো খেলতে পারবে। হার-জিত অবশ্যই আছে। আমার বিশ্বাস ওরা ভালো করবে, যদি আমরা চাপটা ওদের ওপর কমিয়ে দেই। যে দল আছে ওখানে, যথেষ্ট সামর্থ্য আছে।” মাশরাফির মতে, চাপ কমানোর এই দায়িত্ব দলের আশেপাশের সবার। “ব্যক্তিগতভাবে প্রতিটি খেলোয়াড়ের ওপর থেকে চাপ কমিয়ে দিতে হবে। ওরা যদি মন খুলে খেলতে পারে, কোনো চাপ না থাকে, তাহলে অবশ্যই ভালো খেলবে। আমাদের সমস্যা হচ্ছে, খেলোয়াড়দের ওপর আমরা অযথা চাপ সৃষ্টি করে দেই। ওই চাপটা কমিয়ে আনতে হবে, ক্রিকেট বোর্ড থেকে, নির্বাচক বলেন বা আমরা দর্শক যারা আছিৃ। ওদেরকে সমর্থন করাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। আশা করি, সমর্থন করলে ওরা ভালো খেলবে।” নিউ জিল্যান্ডে ৩টি করে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। ওয়ানডে দিয়ে সিরিজ শুরু ২০ মার্চ।

পান্তের সেঞ্চুরিতে উদ্ধার ভারত
স্পোর্টস ডেস্ক॥ বেন স্টোকসের দুর্দান্ত বোলিংয়ে ভারতকে অল্পতে আটকে রাখার স্বপ্নে বিভোর হয়েছিল ইংল্যান্ড। কিন্তু ঋষভ পান্তের দৃঢ় প্রতিরোধে ধীরে ধীরে সেই স্বপ্ন মিলিয়ে যেতে থাকে দূরে। ঘরের মাঠে তার প্রথম সেঞ্চুরির কল্যাণে ইংলিশদের প্রতিআক্রমণও হয়েছে প্রতিহত। তাতে ৭ উইকেটে ২৯৪ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিন শেষ করেছে ভারত। প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ড করেছিল ২০৫ রান। ভারত এখন এগিয়ে আছে ৮৯ রানে। আহমেদাবাদে সিরিজের চতুর্থ টেস্টের দ্বিতীয় দিন দুই সেশন বল হাতে অসাধারণ ছিল ইংলিশরা। প্রতিষ্ঠিত ব্যাটসম্যান চেতেশ্বর পূজারা, বিরাট কোহলি ও আজিঙ্কা রাহানেদের অল্পতেই ফেরায় সাজঘরে। অপরপ্রান্তে রোহিত শর্মা অবশ্য আগলে খেলছিলেন যদিও। কিন্তু স্টোকসের বলে এলবিডাবিউ হয়ে রোহিতকে ফিরতে হয়েছে ৪৯ রানে। তখন অবশ্য ভারতের স্কোরবোর্ডের চেহারাটা মোটেও স্বস্তিদায়ক ছিল না, ৫ উইকেটে ১২১। কিছুণ পর রবিচন্দ্রন অশ্বিন ফিরলে ৬ উইকেটে স্কোর দাঁড়ায় ১৪৬! এমন কঠিন পরিস্থিতিতে দায়িত্বটা নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছিলেন ঋষভ পান্ত। ওয়াশিংটন সুন্দরের সঙ্গে মিলে গড়েন দিনের মূল জুটি। সুন্দরের সঙ্গে তার জুটি ছিল ১১৩ রানের। দলের বিপদের মুহূর্তে শুরুতে ধীরস্থিরই ছিলেন উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান পান্ত। পরে অবশ্য হাত খুলে ব্যাট করেছেন। ঘরের মাঠের প্রথম সেঞ্চুরিটাও পূরণ করেছেন ছয় হাঁকিয়ে, বিশ্বের সবচেয়ে বড় স্টেডিয়ামে। তার ১১৮ বলের ইনিংসটা ছিল ১৩টি চার ও দুই ছয়ে সাজানো। ১০১ রানে অ্যান্ডারসনের বলে পান্ত ফিরলেও এখন ইনিংস এগিয়ে যাচ্ছে সুন্দর ও অর প্যাটেলে ভর করে। তৃতীয় দিন এ দুজনের ওপরই নির্ভর করছে অনেক কিছু। সুন্দর ব্যাট করছেন ৬০ রানে, অর প্যাটেল ১১ রানে। ৪০ রানে ৩ উইকেট নিয়েছেন জেমস অ্যান্ডারসন। দুটি করে নিয়েছেন বেন স্টোকস ও জ্যাক লিচ।

শেষ টি-টোয়েন্টিতে জমা থাকলো সব রোমাঞ্চ
স্পোর্টস ডেস্ক॥ প্রথম দুই টি-টোয়েন্টি হেরে সিরিজ খোয়ানোর শঙ্কা জেগেছিল অস্ট্রেলিয়ার। কিন্তু হাল ছাড়েনি, তাসমান সাগরের ওপারে পরের ম্যাচ জিতে ঠিকই ঘুরে দাঁড়ায় সফরকারীরা। আর গতকাল শুক্রবার চতুর্থ টি-টোয়েন্টিতেও নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে সিরিজে এনেছে সমতা। তাতে পাঁচ ম্যাচ সিরিজের শেষটি অঘোষিত ‘ফাইনালে’ রূপ নেওয়ায় রোমাঞ্চকর শেষের অপোয় অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড লড়াই। ওয়েলিংটনের চতুর্থ টি-টোয়েন্টি অস্ট্রেলিয়া জিতেছে ৫০ রানে। অ্যারন ফিঞ্চের হার না মানা ৭৯ রানে ভর দিয়ে নির্ধারিত ২০ ওভারে অস্ট্রেলিয়া স্কোরে জমা করেছে ৬ উইকেটে ১৫৬ রান। কুড়ি ওভারের বিবেচনায় খুব বেশি কঠিন ল্য ছিল না নিউজিল্যান্ডের। কিন্তু অজি বোলাদের সামনে খেই হারিয়ে ১৮.৫ ওভারে অলআউট হওয়ার আগে স্বাগতিকরা করতে পারে মাত্র ১০৬ রান। নিউজিল্যান্ড আরও কমে গুটিয়ে যেতে পারতো, যদি না দাঁড়িয়ে যেতেন কাইল জেমিসন। আইপিএলে ১৫ কোটি রুপিতে বিক্রি হওয়ার পেসার বল হাতে সুবিধা করতে না পারলেও দলের ব্যাটিং বিপর্যয়ে ১৮ বলে খেলেন ৩০ রানের ইনিংস। নিউজিল্যান্ডের ইনিংসে এটাই সর্বোচ্চ। জেমিসন ছাড়া দুই অঙ্কের ঘরে যেতে পেরেছেন আর মাত্র দুজন- ওপেনার টিম সেইফের্ট (১৯) ও ডেভন কনওয়ে (১৭)। অস্ট্রেলিয়ার সব বোলারই আলো ছড়িয়েছেন। তবে সবচেয়ে সফল কেন রিচার্ডসন, ২.৫ ওভারে ১৯ রান দিয়ে পেয়েছেন ৩ উইকেট। অ্যাস্টন অ্যাগার ৪ ওভারে মাত্র ১১ রান দিয়ে পেয়েছেন ২ উইকেট। তার মতো ২ উইকেট শিকার গেন ম্যাক্সওয়েল (২/১৪) ও অ্যাডাম জাম্পার (২/২৪)। এর আগে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানরাও সুবিধা করতে পারেননি। ভালো শুরু পেয়েও বেশিদূর যেতে পারেননি ম্যাথু ওয়েড (১৪), জশ ফিলিপে (১৩), ম্যক্সওয়েল (১৮) ও মার্কাস স্টোইনিস (১৯)। তবে একপ্রান্ত আগলে রেখে ল্েযর পথে অবিচল ছিলেন অধিনায়ক ফিঞ্চ। তাকে আউটই করতে পারেননি কিউই বোলাররা। অপরাজিত থাকেন ৭৯ রানে। ৫৫ বলে ৫ বাউন্ডারি ও ৪ ছক্কায় সাজানো ইনিংসটি খেলার পথে ফিঞ্চ আবার গড়েছেন নতুন রেকর্ড। টি-টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়ার সর্বোচ্চ রানের (২ হাজার ৩১০) মালিক এখন ম্যাচসেরার পুরস্কার জেতা এই ব্যাটসম্যান। পেছনে ফেলেছেন ডেভিড ওয়ার্নারকে (২ হাজার ২৬৫)। নিউজিল্যান্ডের সবচেয়ে সফল বোলার ইশ সোধি। এই স্পিনার ৩২ রান দিয়ে নেন ৩ উইকেট। আর ৪ ওভারে ২৭ রান দিয়ে ২ উইকেট পেয়েছেন ট্রেন্ট বোল্ট।

খেলা চলাকালীন এলো করোনা আক্রান্তের খবর, সাইফদের ম্যাচ বাতিল
স্পোর্টস ডেস্ক॥ শুক্রবার খেলা, তাই বৃহস্পতিবার করা হয়েছিল করোনাভাইরাস পরীা। কিন্তু ম্যাচের সময় হয়ে যাওয়ার পরও ফল হাতে আসেনি। বাধ্য হয়ে ফল না দেখেই শুরু হয় বাংলাদেশ ইমার্জিং দল ও আয়ারল্যান্ড ‘এ’ দলের প্রথম ওয়ানডে। কিন্তু চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের ম্যাচটির মাঝপথেই পড়লো বাধা। খবর এলো, আইরিশ দলটির অলরাউন্ডার রুহান প্রিটোরিয়াস, যিনি একাদশে থেকে ফিল্ডিং করছেন, তিনি করোনায় আক্রান্ত! তাই ৩০ ওভার শেষে বাতিল করা হয়েছে ম্যাচটি। বাংলাদেশ ইমার্জিং দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন জাতীয় দলের ওপেনার সাইফ হাসান। তাদের খেলা পরিত্যক্তের খবর দিয়ে ক্রিকেটবিষয়ক ওয়েবসাইট ক্রিকইনফো জানিয়েছে, আয়ারল্যান্ড টিম ম্যানেজমেন্ট শুরুতে প্রিটোরিয়াসের বদলি নামানোর চিন্তা করেছিল, কিন্তু পরে তারা মাঠ ছেড়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। আর পরবর্তীতে পরিত্যক্তের ঘোষণা আসে। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী জানিয়েছেন, কোভিড পরীার ফল যখন হাতে এসেছে, তখন ম্যাচ বাতিল করা ছাড়া আর কোনও উপায় ছিল না। একই সঙ্গে তিনি এও নিশ্চিত করেছেন, রবিবার দ্বিতীয় ওয়ানডের আগে দুই দলের সব খেলোয়াড়কে আবার পরীা করানো হবে। নিজামউদ্দিনের ব্যাখ্যা, ‘যেই পজিটিভ হবে, আমরা তাৎণিক তাকে প্রোটোকল মেনে আইসোলেশনে নিয়ে যাব। এই রিপোর্ট (প্রিটোরিয়াসের করোনা পরীার ফল) আসতে কিছুটা দেরি হয়েছে। যে কারণে আমাদের হাতে আর কোনও সুযোগ ছিল না।’ বাতিল হওয়া ওয়ানডেতে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমেছিল বাংলাদেশ ইমার্জিং দল। করোনা পজিটিভের খবর আসার আগে ৩০ ওভারে স্বাগতিকরা ৪ উইকেটে করেছিল ১২২ রান। এর আগে চার দিনের ম্যাচে আইরিশ দলকে ইনিংস ব্যবধানে হারিয়েছে ইমার্জিং দল।

ভূমিকম্প-ভীতি কাটিয়ে অনুশীলনে বাংলাদেশ
স্পোর্টস ডেস্ক॥ তিন দফা শক্তিশালী ভূমিকম্পের পর সব ভয়-শঙ্কা কাটিয়ে নিউজিল্যান্ডে অনুশীলন করেছেন তামিম ইকবালরা। বিসিবির মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস বাংলাদেশি সাংবাদিকদের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম গ্রুপে পাঠানো একটি ভিডিও বার্তায় জানিয়েছেন, সুনামির সতর্কতা তুলে নেওয়ায় নিশ্চিন্তে তারা অনুশীলন করছেন। সর্বশেষ নিউজিল্যান্ড সফরও বাংলাদেশের জন্য সুখকর কিছু ছিল না। ২০১৯ সালের শুরুতে ক্রাইস্টচার্চে এক মসজিদে উন্মত্ত বন্দুকধারী এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে ৫০ জন মুসলিকে খুন করে। বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররাও সেই মসজিদে জুম্মার নামাজ পড়তে যাচ্ছিলেন। ক্রিকেটাররা মসজিদে যাওয়ার কিছুণ আগে এই নারকীয় ঘটনা ঘটে। ভিডিওতে জালাল ইউনুস বলেছেন, ‘নিউজিল্যান্ডে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ২টা ২৭ মিনিটে নর্থ আইসল্যান্ডের ইস্ট কোস্টের দিকে একটি ভূমিকম্প হয়, যা ক্রাইস্টচার্চ থেকে প্রায় আড়াই হাজার কিলোমিটার দূরে সমুদ্রের গভীরে হয়েছিল। সেখান থেকে সুনামি হওয়ার আশঙ্কা ছিল উত্তরাঞ্চলের সৈকত সংলগ্ন এলাকায়। তবে তার প্রভাব পড়েনি ক্রাইস্টচার্চে। বাংলাদেশ দল ভালো আছে, আমরা সবাই সুস্থ আছি, নিরাপদে আছি।’ ‘যেভাবে আমাদের নিয়মমাফিক অনুশীলন ছিল, সেভাবে চালিয়ে যাচ্ছি। চারটি গ্রুপে খেলোয়াড়রা অনুশীলন করেছে, জিম করেছে। সরকার ও ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে সব সময় যোগাযোগ আছে, তারা আমাদের চিন্তা করতে মানা করেছে। সবকিছু ঠিক আছে, যেসব অঞ্চলে সুনামি সতর্কতা রয়েছে তাও তুলে নেওয়া হচ্ছে। আমরা সূচি অনুযায়ী কাজ চালিয়ে যাব।’

লিভারপুলকে হারিয়ে শীর্ষ চারে চেলসি
স্পোর্টস ডেস্ক॥ লিভারপুলকে হারিয়ে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের পয়েন্ট তালিকার চার নম্বরে উঠে গেছে চেলসি। অ্যানফিল্ডে বৃহস্পতিবার রাতে ১-০ ব্যবধানে জিতেছে টমাস টুখেলের দল। ম্যাচের একমাত্র গোলটি করেন ম্যাসন মাউন্ট। লিগে এনিয়ে ঘরের মাঠে টানা পাঁচ ম্যাচ হারল লিভারপুল। টুখেল দায়িত্ব নেওয়ার পর সব প্রতিযোগিতা মিলে টানা ১০ ম্যাচে অপরাজিত চেলসি। গত সেপ্টেম্বরে দুই দলের প্রথম দেখায় স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে ২-০ গোলে জিতেছিল লিভারপুল। আসরে দুই ম্যাচ পর জয়ের স্বাদ পেল চেলসি। গত দুই রাউন্ডে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও সাউদাম্পটনের সঙ্গে ড্র করেছিল তারা। আর টানা চার হারের পর গত রাউন্ডে শেফিল্ড ইউনাইটেডের বিপে ২-০ গোলে জিতেছিল ইয়ুর্গেন কপের দল। এদিন বিরতির আগে ৪২তম মিনিটে এগিয়ে যায় সফরকারীরা। নিজেদের অর্ধ থেকে এনগোলো কঁতের বাড়ানো বল ধরে ডি-বক্সে ঢুকে পড়েন মাউন্ট। লিভারপুলের দুই খেলোয়াড়ের বাধায় শুরুতে শট নিতে পারেননি। একটু সরে গিয়ে ডান পায়ের শটে ঠিকানা খুঁজে নেন ইংলিশ মিডফিল্ডার। পুরো ম্যাচে চেলসির ১১ শটের পাঁচটি ছিল ল্েয। লিভারপুল ল্েয তাদের একমাত্র শটটি নিতে পারে শেষ দিকে গিয়ে। ২৭ ম্যাচে ১৩ জয় ও আট ড্রয়ে চেলসির পয়েন্ট হলো ৪৭। সমান ম্যাচে ৪৩ পয়েন্ট নিয়ে সাত নম্বরে গতবারের চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল। ওয়েস্ট ব্রমউইচ অ্যালবিয়নের মাঠে ১-০ গোলে জেতা এভারটন ২৬ ম্যাচে ৪৬ পয়েন্ট নিয়ে পাঁচে আছে। ২৭ ম্যাচে ৬৫ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে ম্যানচেস্টার সিটি। ৫১ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে আছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। তাদের চেয়ে ১ পয়েন্ট কম নিয়ে তিন নম্বরে লেস্টার সিটি।

জাতীয় আর্চারিতে আলিফের বাজিমাত
স্পোর্টস ডেস্ক॥ জাতীয় আর্চারি চ্যাম্পিয়নশিপে বাজিমাত করলেন আব্দুর রহমান আলিফ। বাংলাদেশ ক্রীড়া শিাপ্রতিষ্ঠানের (বিকেএসপি) এই আর্চার রিকার্ভ ব্যক্তিগত, দলগত ও মিশ্র দলগত বিভাগে সেরার স্বাদ পেয়েছেন। তারকা আর্চার রোমান সানাকে বিদায় করে সেরার লড়াইয়ে পেরে ওঠেননি হাকিম আহমেদ রুবেল। তাকে হারিয়েই রিকার্ভ পুরুষ এককের সোনা জেতেন আলিফ। বৃহস্পতিবার কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রতিযোগিতার শেষ দিনে রিকার্ভ পুরুষ এককে আলিফ ৭-৩ সেট পয়েন্টে রুবেলকে হারান। এ ছাড়া রিকার্ভ পুরুষ দলগত বিভাগের ফাইনালে প্রদীপ্ত চাকমা ও শেখ সজীবকে সঙ্গে নিয়ে ৬-২ সেট পয়েন্টে ঢাকা জেলা ক্রীড়া সংস্থার আফজাল হোসেন-সাগর ইসলাম-মিশাদ প্রধানকে হারান। মিশ্র দলগত বিভাগে সেরা হওয়ার লড়াইয়ে দিয়া সিদ্দিকীর সঙ্গে জুটি গড়ে ৫-৪ সেট পয়েন্টে জেতেন পুলিশ আর্চারি কাবের তামিমুল ইসলাম ও বিউটি রায় জুটির বিপ।ে রিকার্ভ মহিলা এককে সেরা হয়েছেন ঢাকা আর্মি আর্চারি কাবের মেহেনাজ আক্তার মনিরা। নাসরিন আক্তার ও রাবেয়া আক্তারকে সঙ্গে নিয়ে মেয়েদের দলগত রিকার্ভেও সোনা জেতেন মেহেনাজ। এদিকে কম্পাউন্ড পুরুষ এককে সেরা হয়েছেন বাংলাদেশ আনসারের ঐশ্বর্য্য রহমান। কম্পাউন্ড মহিলা একক ইভেন্টে সুস্মিতা বনিক সেরা হন। কম্পাউন্ড মহিলা দলগত ইভেন্টে রোকসানা আক্তার, সুস্মিতা বনিক ও তানিয়া রীমা সোনা এনে দিয়েছেন ঢাকা আর্মি আর্চারি কাবকে। কম্পাউন্ড পুরুষ দলগত ইভেন্টে সেরা হয়েছে অসীম কুমার দাস, মোহাম্মদ আশিকুজ্জামান ও ভানরুম বমকে নিয়ে গড়া বাংলাদেশ পুলিশ আর্চারি কাব। কম্পাউন্ড মিশ্র দলগত ইভেন্টে রোকসানা আক্তার ও মিঠু রহমান সোনা এনে দিয়েছেন ঢাকা আর্মি আর্চারি কাবকে।