যশোর শিক্ষা বোর্ডে ১ লাখ ২১ হাজার ৫২৮ শিক্ষার্থী অটোপাস # জিপিএ-৫ বেড়েছে প্রায় আড়াই গুণ

মাসুদ রানা বাবু ॥ সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে পরীক্ষা ছাড়াই প্রকাশিত হলো ২০২০ সালের এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল। বৈশ্বিক করোনা মহামারির কারণে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষার ফলাফল মূল্যায়ন করে এই ফল প্রকাশ করা হয়েছে। ফলাফলে সকল ছাত্র-ছাত্রীকে উত্তীর্ণ দেখা হয়েছে।
২০২০ সালে যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ১ লাখ ২১ হাজার ৫২৮। বোর্ডের আওতাধীন ১০ জেলার ৫৭৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের ২২৬টি কেন্দ্রে পরীক্ষা গ্রহণের কথা ছিল। কিন্তু করোনা মহামারীর কারণে পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হয়নি। এ প্রেক্ষাপটে ২০২০ সালে এইচএসসিতে অধ্যায়নরত ছাত্র-ছাত্রীদের পরীক্ষা বাতিল করে জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল মূল্যায়ন করে ‘অটোপাস’ দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। সিদ্ধান্ত মোতাবেক গতকাল ফলাফল প্রকাশ করা হয়। এতে সকল ছাত্র-ছাত্রীই উত্তীর্ণ হয়েছে।
গতকাল শনিবার প্রকাশিত ফলাফলে ১ লাখ ২১ হাজার ৫২৮ পরীক্ষার্থীর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১২ হাজার ৮৯২। যা বিগত ২০১৯ সালের চেয়ে প্রায় আড়াই গুণ। ওই বছর জিপিএ ৫ পেয়েছিল ৫ হাজার ৩১২। জিপি-এ ৫ প্রাপ্ত ১২ হাজার ৮৯২ জনের মধ্যে ছেলে ৬ হাজার ৪৩০ এবং মেয়ে ৬ হাজার ৪৬২। এছাড়া জিপি এ-৪ পেয়েছে ৩৭ হাজার ৬৫৮। জিপিএ ৩ দশমিক ৫ পেয়েছে ২৮ হাজার ৪৫৩, জিপিএ-৩ পেয়েছে ২ ৪ হাজার ১৪৫, জিপিএ-২ পেয়েছে ১৭ হাজার ৯২৪ এবং জিপিএ-১ পেয়েছে ৪৫৬ জন। ২০২০ সালে যশোর শিক্ষা বোর্ডের ১ লাখ ২১ হাজার ৫২৮ শিক্ষার্থীর মধ্যে অর্ধেক ছেলে এবং অর্ধেক মেয়ে। বিজ্ঞান বিভাগে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ২১ হজার ১৩৫। এর মধ্যে ছেলে ১২ হাজার ১৮০ এবং মেয়ে ৮ হাজার ৯৫৫। মানবিক বিভাগে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ৮১ হাজার ৪৫৪। এর মধ্যে ছেলে ৩৮ হাজার ৬৭২, মেয়ে ৪২ হাজার ৭৮২। ব্যবসায়িক শাখায় পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ১৮ হাজার ৯৩৯। ছেলে ১০৯০৯ এবং মেয়ে পরীক্ষার্থী ছিল ৮ হাজার ৩০।
বিগত ২০১৯ সালে চেয়ে ২০২০ সালে যশোর শিক্ষা বোর্ডে সংখ্যায় ৪২ হাজার ৭০১ জন পরীক্ষার্থী কম ছিল। ২০১৯ সালে ছিল ১ লাখ ২৬ হাজার ২২৯। জেএসসির ফলাফল থেকে শতকরা ২৫ এবং এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল থেকে বাকি ৭৫ ভাগ নিয়ে এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল মূল্যায়ন করা হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়।