নির্যাতিতদের প্রতিকার পেতে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া উচিত : ন্যাপ

লোকসমাজ ডেস্ক॥ নির্যাতিতদের নিরাপত্তার পথে সব বাধা দূর করতে এবং নির্যাতিতদের সত্যিকার প্রতিকার দিতে সরকারের কঠোর ও কার্যকরী পদক্ষেপ নেয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ। শুক্রবার (২৬ জুন) নির্যাতিতদের সমর্থনে জাতিসংঘ ঘোষিত আন্তর্জাতিক দিবস উপলক্ষে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে দলটির চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া এসব কথা বলেন।
তারা বলেন, জাতিসংঘের নির্যাতন ও অন্য নিষ্ঠুর, অমানবিক বা অবমাননাকর আচরণ বা শাস্তি বিষয়ক কনভেনশনে অন্তর্ভুক্তির সময় বাংলাদেশ ঘোষণা করে, দেশের বিরাজমান আইন ও বিধানের সঙ্গে সংগতি রেখে ১৪ অনুচ্ছেদের ১ উপধারা অনুযায়ী প্রত্যেক সদস্য রাষ্ট্র নিজ দেশের আইনগত প্রক্রিয়ায় নির্যাতনের শিকার ব্যক্তি ও তার ওপর নির্ভরশীল ব্যক্তিদের প্রতিকার প্রাপ্তি এবং ন্যায্য ও পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণের একটি প্রয়োগযোগ্য অধিকার; যেখানে যতটা সম্ভব ততটা পুনর্বাসনের ব্যবস্থা নিশ্চিত করবে। এ কথার জন্য নেদারল্যান্ড সরকার কনভেনশনের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যের প্রতি বাংলাদেশের প্রতিশ্রুতি সম্পর্কে প্রশ্ন তুলেছিল। ন্যাপ নেতারা বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশ জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলের সদস্য নির্বাচিত হলেও নির্যাতিত মানুষের নিরাপত্তা দেয়া তথা চরম মানবাধিকার লঙ্ঘনের প্রতিকারে ও প্রতিরোধে সম্পূর্ণরূপে ব্যর্থ। তাই নির্যাতনকে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত পন্থায় অপরাধ হিসেবে গণ্য করে আইন কার্যকর করতে হবে। নির্যাতন স্পষ্টভাবে নিষিদ্ধ, নির্যাতনবিরোধী কনভেনশনের ১৪ অনুচ্ছেদের ১ উপধারার ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার ও নির্যাতিত মানুষকে পর্যাপ্ত সাহায্য দেয়া নিশ্চিত করতে হবে।
বাংলাদেশে নির্যাতিতদের নিরাপত্তা প্রদানে সব ধরনের অপপ্রয়োগ এবং নির্যাতনের নিন্দা জানিয়েছে ন্যাপ। পাশাপাশি সরকারকে চরম অমানবিক মৌলিক ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের সত্যিকার প্রতিকার নিশ্চিত করতে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানায় দলটি।

Lab Scan
ভাগ