তিন মন্ত্রীসহ ১৫ মন্ত্রী-এমপি ও সংসদের ৯৪ কর্মকর্তা-কর্মচারি করোনায় আক্রান্ত

লোকসমাজ ডেস্ক॥ জাতীয় সংসদের ১৫ জন সংসদ সদস্য ও ৯৪ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে সংসদ সচিবালয় সূত্রে জানা গেছে। সংসদ সচিবালয়ের উদ্যোগে প্রতিদিনই কর্মকর্তা-কর্মচারীদের করোনা টেস্ট করা হচ্ছে। এতে এখন পর্যন্ত সর্বমোট ৯৪ কর্মকর্তা-কর্মচারীর কভিড-১৯ শনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ সংসদ ভবনের কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও রয়েছেন। এ বিষয়ে জানেতে চাওয়া হলে জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের ডেন্টাল সার্জন ডা. তামিম গণমাধ্যমকে বলেন, আমরা যাদের টেস্ট করেছি এখন পর্যন্ত (১৮ জুন) ৯৪ জন শনাক্ত হয়েছেন। শনিবার থেকে এমপিদেরও করোনা টেস্ট করা শুরু হয়েছে। যারা পরবর্তী বৈঠকগুলোতে অংশ নেবেন তাদের টেস্ট করা হচ্ছে। এদিকে যারা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন তাদের মধ্যে তিন মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রীসহ ১৫ সংসদ সদস্য রয়েছেন। এদের মধ্যে একজন সাবেক চিফ হুইপ রয়েছেন। আক্রান্তরা হলেন- বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং ও ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ। এদের মধ্যে দুজন মারা গেছেন।
এদিকে, মহামারি করোনাভাইরাসে এ পর্যন্ত দেশের ১৫ জন মন্ত্রী-এমপি আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে দুজন মারা গেছেন। শনিবার (২০ জুন) নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য এবং জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। এছাড়া বেশ কয়েকজন সাবেক মন্ত্রী-এমপি ও তাদের পরিবারের সদস্যরা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছেন- মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক ও তার স্ত্রী লায়লা আরজুমান্দ বানু , বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং ও ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ। তাদের মধ্যে শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ মারা গেছেন। তিনি টেকনোক্র্যাট কোটায় মন্ত্রী ছিলেন। সাবেক মন্ত্রী ও সিরাজগঞ্জ থেকে নির্বাচিত আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম করোনা আক্রান্তের পর ব্রেন স্ট্রোক করে মারা যান। গত ২-৩ দিন আগে থেকেই জ্বরে আক্রান্ত মাশরাফি বিন মর্তুজা। সেই সঙ্গে ছিল শরীর ব্যথা। পরে করোনা পরীক্ষার জন্য গত বৃহস্পতিবার (১৮ জুন) নমুনা দেন তিনি। শুক্রবার মাশরাফির করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। বর্তমানে ঢাকার বাসায় আইসোলেশনে আছেন তিনি।
এর আগে শুক্রবার সাবেক মন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেয়াই ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। বর্তমানে তিনি জাতীয় সংসদে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমটির দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ হোসেন পুতুলের শ্বশুর। ফরদিপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসনের বাসার স্টাফ ও অন্যান্যদের করোনার রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে বলে আগেই জানা গেছে। এছাড়া সাবেক হুইপ নওগাঁ-২ আসনের সাংসদ শহিদুজ্জামান সরকার, রেল মন্ত্রণালয় বিষয়ক কমিটির সভাপতি এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী, যশোর-৪ আসনের সংসদ সদস্য রণজিত কুমার রায়, চট্টগ্রাম-৮ আসনের সংসদ সদস্য মোসলেম উদ্দিন সপরিবারে, জামালপুর-২ আসনের এমপি ফরিদুল হক খান দুলাল, চট্টগ্রাম-১৬ আসনের এমপি মো. মোস্তাফিজুর রহমান সপরিবারে, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ আসনের মোহাম্মদ এবাদুল করিম বুলবুল, উপাধ্যক্ষ আবদুস শহীদ ও গণফোরামের এমপি মোকাব্বির খান করোনা আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন আছেন। এছাড়া জাতীয় সংসদের ৯৪ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী করোনায় আক্রান্ত হয়ে আইসোলেশনে রয়েছেন। এদিকে পরিবারের সদস্যদের করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসার পর পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, বাগেরহাট-১ আসনের এমপি শেখ হেলাল উদ্দীন, এমপি শেখ তন্ময়, যশোর-৩ আসনের আওয়ামী লীগের কাজী নাবিল আহমেদ, রাজবাড়ী-১ আসনের কাজী কেরামত আলী ও টাঙ্গাইল-৬ আসনের আহসানুল ইসলাম টিটুসহ প্রায় ৪০ জন মন্ত্রী-এমপিকে সংসদ অধিবেশনে না আসার অনুরোধ জানানো হয়েছে। তাদের পরিবার, গাড়ির চালক বা ঘনিষ্ঠ কেউ করোনা আক্রান্ত হওয়ায় এবং স্বাস্থ্যগত কারণে সংসদের চলতি বাজেট অধিবেশনে না আসার জন্য বলা হয়েছে।

Lab Scan
ভাগ