রাজারহাটে ধর্মান্ধ হিন্দু যুবকের ধারালো অস্ত্রের কোপে মাংস ব্যবসায়ী গুরুতর জখম

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যশোর শহরতলীর রাজারহাটে গত শুক্রবার হিন্দু সম্প্রদায়ের ধর্মান্ধ এক যুবকের ধারালো অস্ত্রের কোপে আসলাম হোসেন নামে একজন মাংস ব্যবসায়ী গুরুতর জখম হয়েছেন। গরুর মাংস কাটার কারণে তাকে কুপিয়ে জখম করা হয়। মহাদেব রায় (২৭) নামে হামলাকারী ওই যুবক পরে অবশ্য স্থানীয় জনতার হাতে আটক হয়েছেন। তাকে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়েছে। আটক মহাদেব রায় সদর উপজেলার সতীঘাটা ভাটপাড়ার বিমল রায়ের ছেলে।
মাংস ব্যবসায়ী আসলাম হোসেনের বাড়ি সদর উপজেলার রামনগরে আরআরএফ ট্রেনিং সেন্টারের পাশে। রাজারহাটে তিনি মাংসের ব্যবসা করেন। স্ত্রী ফারজানা বেগমের অভিযোগ, মহাদেব হিন্দু সম্প্রদায়ের লোক। তার স্বামী গরুর মাংস ও হাড় কাটলে খারাপ লাগে বলে মহাদেব ইতোপূর্বে জানিয়েছিলেন। এ নিয়ে দুজনের মধ্যে কথা কাটাকাটিও হয়েছিলো। এর জের ধরে গত শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাজারহাটে মাংসের দোকানে কাজ করার সময় মহাদেব আচমকা মাংস কাটার একটি চাপট নিয়ে পেছন থেকে তার স্বামীর ঘাড়ে ও পিঠে কোপ মারেন। এতে তার স্বামী আসলাম হোসেন মারাত্মক জখম হন। পরে স্থানীয় লোকজন ছুটে এসে তার স্বামীকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। কিন্তু অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় পরে তাকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। সূত্র জানায়, স্থানীয় লোকজন হামলাকারী মহাদেবকে হাতেনাতে আটক করেন। পরে তাকে পিটুনি দিয়ে পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়। পুলিশ জানায়, ওই ঘটনায় মহাদেবসহ দুজনের বিরুদ্ধে কোতয়ালি থানায় মামলা হয়েছে। অপর আসামি রাজারহাটের মদিনা টেইলার্সের মালিক হাবু। তার বিরুদ্ধে মহাদেবকে ইন্ধন দেওয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে।