পাকিস্তানের চার শহরেই এবার পুরো পিএসএল

লোকসমাজ ডেস্ক ॥ এর আগে কখনো ফাইনাল, কখনো কোয়ালিফায়ার এবং ফাইনাল আয়োজনের পর এবার পুরো পিএসএলই (পাকিস্তান সুপার লিগ) পাকিস্তানের মাটিতে আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে পিসিবি (পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড)। ২০ ফেব্রুয়ারি শুরু হবে এবারের পিএসএল। শেষ হবে ২২ মার্চ। পাকিস্তানের চারটি শহরে অনুষ্ঠিত হবে পিএসএলের মোট ৩৪টি ম্যাচ। ২০১৬ সালে যাত্রা শুরু হয় পিএসএলের। সেবার পুরো পিএসএলই অনুষ্ঠিত হয়েছে আরব আমিরাতের মাটিতে। আবুধাবি, দুবাই এবং শারজায়। এরপর, ২০১৭ সালের পিএসএলের ফাইনালছাড়া সব ম্যাচই অনুষ্ঠিত হয় আরব আমিরাতে। ফাইনাল ম্যাচটিই কেবল লাহোরের গাদ্দাফী স্টেডিয়ামে আয়োজন করা হয় ব্যাপক নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে। এরপর ২০১৮ সালে দুটি ইলিমিনেটর এবং ফাইনালসহ মোট তিনটি ম্যাচ আয়োজন করা হয় করাচি এবং লাহোরে। ২০১৯ সালে এসে পাকিস্তানের মাটিতে ম্যাচের সংখ্যা আরও বাড়িয়ে দেয় পিসিবি। আয়োজন করা হয় গ্রুপ পর্বের চারটি ম্যাচ। এছাড়া কোয়ালিফায়ার এবং ইলিমিনেটর ও ফাইনাল ম্যাচগুলোও আয়াজন করা হয় পাকিস্তানের মাটিতে।
এবার পিসিবি সিদ্ধান্ত নিয়েছে পুরো পিএসএলই অনুষ্ঠিত হবে তাদের নিজেদের দেশে। ভিন্ন কোনো দেশে ভাড়া করা স্টেডিয়ামে নয়। আজ এই ঘোষণা দিয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। ২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট দলের ওপর নারকীয় সন্ত্রাসী হামলা হওয়ার পর থেকে পাকিস্তানের মাটি থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অলিখিতভাবে নিষিদ্ধ হয়ে যায়। বিদেশি কোনো দল তো দুরে থাক, কোনো ক্রিকেটার এবং কর্মকর্তাও পাকিস্তান সফর করতে যেতে ভয় পেতে শুরু করে। অবশেষে পিসিবির টানা প্রচেষ্টার কারণে ধীরে ধীরে পাকিস্তানের মাটিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফিরতে শুরু করেছে। সেই শ্রীলঙ্কাই কিছুদিন আগে দুই দফায় পাকিস্তান সফর করে গেলো। প্রথমবার টি-টোয়েন্টি খেলতে, পরেরবার দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে।
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফিরে আসার কারণেই এবার পিসিবি সিদ্ধান্ত নিয়েছে তাদের ঘরোয়া ফ্রাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টটি আয়োজন করবে ঘরের মাঠেই। এ কারণে তারা লাহোর, করাচি, রাওয়ালপিন্ডি এবং মুলতানকে বেছে নিয়েছে। ফাইনালসহ লাহোরের গাদ্দাফী স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে মোট ১৪টি ম্যাচ। করাচি ন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনীসহ মোট ৯টি ম্যাচ। রাওয়ালপিন্ডিতে কিছুদিন আগে অনুষ্ঠিত হয়েছে পাকিস্তান এবং শ্রীলঙ্কার মধ্যকার টেস্ট ম্যাচ। ওই ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত হবে মোট ৮ ম্যাচ। এছাড়া মুলতানে অনুষ্ঠিত হবে তিন ম্যাচ। পিসিবি চেয়ারম্যান এহসান মানি বলেন, ‘পাকিস্তানে টেস্ট ক্রিকেট ফিরে আসার পর ঘরের মাঠে পাকিস্তান সুপার লিগ (পিএসএল) আয়োজন করতে পারাটা হচ্ছে আমাদের অনেক বড় একটি অর্জন। আমার কখনোই কোনো সন্দেহ ছিল না যে, এটা পাকিস্তানের ঘরোয়া লিগ এবং ঘরের দর্শকদের সামনেই এটা আয়োজন করা সম্ভব হবে।’