৩৫ বছরের মধ্যেও চালু হয়নি পাইকগাছার জেলখানা, কোটি কোটি টাকার সম্পদ নষ্ট

কপিলমুনি (খুলনা) সংবাদদাতা ॥ খুলনার পাইকগাছা উপজেলা সদরে ৩৫ বছর আগে সোয়া দুই একর জমির উপর নির্মাণ করা হয় জেলখানা। কিন্তু সেই জেলখানা আজও চালু হয়নি। তদারকির অভাবে পাইকগাছা আদালতের পাশে জেলখানার জন্য নির্মিত উঁচু প্রাচীরবেষ্টিত ভবনসহ কোটি কোটি টাকার মূল্যবান সম্পদ-সম্পত্তি এখন বারোভূতে লুটেপুটে খাচ্ছে। এখানে সরকার বিভিন্ন সময় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান করার সিদ্ধান্ত নিলেও ৩৫ বছরের মধ্যে কোনোটিই বাস্তবায়ন হয়নি।
সূত্রে জানা যায়, খুলনা জেলা সদর থেকে পাইকগাছার দূরত্ব ৬৫ কিলোমিটার। এতো দূরের পথে অপরাধীদের নিয়ে আসার ঝামেলা এড়াতে এবং জেলখানার গুরুত্ব ভেবে তৎকালিন এরশাদ সরকার পাইকগাছায় জেলখানা স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেন। ১৯৮৪ সালের ২৯ মে পাইকগাছা সদরে বাতিখালী মৌজায় এর জন্য ২.২৫ একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়। ২০০৩ সালে ১০ মে কিশোর অপরাধের জন্য সরকারি শিশু উন্নয়ন কেন্দ্র স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সমাজসেবা অধিদফতরের কাছে জায়গাটি হস্তান্তর করে। যা উপজেলা সমাজসেবা অধিদফতর ২০০৫ সালের ৫ জানুয়ারি ২৩৬/৫৬/০৫ স্মারকে দায়িত্ব গ্রহণ করে। কিন্তু সেটাও বাস্তবে রূপ নেয়নি। পরবর্তীতে সরকার ২০১৩ সালের ৬ মে শেখ রাসেল ট্রেনিং অ্যান্ড রিহেবিলিটেশন সেন্টার ফর দ্যা ডেস্টিটিউট চিল্ড্রেন প্রকল্প প্রণয়নের জন্য পরিচালক প্রশাসন ও অর্থ প্রস্তাব চেয়ে পাঠান। সরকারের কোনো পদপে বাস্তবে রূপ না নেয়ায় ২০১২ সালের ২২ জুলাই ৮২৮ স্মারকে সিনিয়র সহকারী কমিশনার জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, পাইকগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে পত্র পাঠান। যার জবাবে তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ২০১২ সালের ১২ ডিসেম্বর ৮৩৪ স্মারকে সাব-জেল চালু করার জন্য পত্র প্রেরণ করেন। অদ্যাবধি সেটাও আলোর মুখ দেখেনি।
এ বিষয় উপজেলা চেয়ারম্যান স.ম বাবর আলী বলেন, বিগত দিনে দেশের যেখানে উপজেলা পরিষদ তৈরি হয়েছিল সেখানে সাবজেল বানানো হয়েছিল। মেয়র সেলিম জাহাঙ্গীর বলেন, এটা এখন কোন কাজে আসছে না। জনগণের জন্য নতুন কিছু করলে ভাল হবে। দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি শেখ লোকমান হোসেন বলেন, সহজে যেটা পাওয়া যায় সেটার মূল্য কম কিন্তু এত কম তা জানা ছিল না। কারণ এত কাছে পেয়ও তা কেউ ভোগ করতে পারলো না এটা খুবই দুঃখজনক। জেলখানাটি চালুর জন্য এলাকাবাসী বারবার দাবি জানালেও বড় বড় নেতাদের কানে পৌঁছেনি। জেলখানা চালুর ব্যাপারে এলাকার জনপ্রতিনিধিরা তেমন কার্যকর পদপে নেননি আজো।

ভাগ