৩০ সেকেলে অ্যাপল পণ্য…

    গ্রাহকরা অন্য যেকোনো ব্র্যান্ডের চেয়ে অ্যাপলের পণ্য দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহার করেন, এটা সম্ভব হয় পণ্যগুলোর দীর্ঘায়ুর কারণে। একগুচ্ছ পণ্যের জন্য নিয়মিত হালনাগাদ দিচ্ছে অ্যাপল। এর মধ্যে কিছু পণ্য রয়েছে, যেগুলো আনুষ্ঠানিকভাবে সেকেলে ঘোষণা করা হয়েছে। এমন ৩০টি অ্যাপলপণ্য নিয়ে আয়োজনের আজ প্রথম পর্ব—
    আইফোন:
    ২০০৭ সালের ২৯ জুন প্রথম প্রজন্মের আইফোন উন্মোচন করেছিল অ্যাপল। এরপর প্রতি বছর আইফোনের হালনাগাদ সংস্করণ উন্মোচন করেছে প্রতিষ্ঠানটি। আইফোন মোবাইল কম্পিউটিং খাতে এক বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনেছে। ১১ বছর আগে বাজারে আসা প্রথম প্রজন্মের আইফোন এখন অনেকটাই আবেদন হারিয়েছে। যে কারণে অ্যাপলের ব্যবসায় মোড় ঘুড়িয়ে দেয়া প্রথম প্রজন্মের আইফোনকে আনুষ্ঠানিকভাবে সেকেলে ঘোষণা করা হয়েছে।
    ম্যাকবুক এয়ার ১১ ইঞ্চি:
    ২০১০ সালের দ্বিতীয়ার্ধে ১১ ইঞ্চি ডিসপ্লের ম্যাকবুক এয়ার উন্মোচন করেছিল অ্যাপল। এরপর ডিভাইসটির বেশ কয়েকটি হালনাগাদ সংস্করণ বাজারে ছাড়া হয়েছে। ২০১৬ সালে যখন নতুন ১৩ ইঞ্চি ডিসপ্লের দুই ম্যাকবুক প্রোর ঘোষণা দেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিল অ্যাপল, তখন ম্যাকবুক এয়ার ১১ ইঞ্চি আনুষ্ঠানিকভাবে উৎপাদন বন্ধের ঘোষণা দেয় প্রতিষ্ঠানটি। ডিভাইসটির সরবরাহ শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত দাম ছিল ৮৯৯ ডলার।
    আইপ্যাড (অরিজিনাল):
    ২০১০ সালের ৩ এপ্রিল প্রথম আইপ্যাড ডিভাইস উন্মোচন করেছিল অ্যাপল। ট্যাবলেট ডিভাইসটি অন্যান্য অ্যাপলপণ্যের মতোই ফক্সকনের মাধ্যমে তৈরি করা হয়। অ্যাপল গত ১৮ মার্চ পঞ্চম প্রজন্মের আইপ্যাড মিনি উন্মোচন করেছে। কার্যত আট বছরের বেশি সময় আগে বাজারে আসা প্রথম প্রজন্মের আইপ্যাড গ্রাহক পর্যায়ে আকর্ষণ হারায়। আনুষ্ঠানিকভাবে উৎপাদন বন্ধের ঘোষণা দেয়ার আগে বিশ্বব্যাপী ৩৬ কোটি ইউনিট প্রথম প্রজন্মের আইপ্যাড বিক্রিতে সক্ষম হয়েছিল অ্যাপল।
    আইফোন থ্রিজি:
    অ্যাপল ২০০৮ সালের জুনে আইফোন থ্রিজি উন্মোচন করেছিল। ১২৮ মেগাবাইট র্যামের ডিভাইসটির ৮ ও ১৬ গিগাবাইট অভ্যন্তরীণ স্টোরেজ সংস্করণ বাজারে ছাড়া হয়েছিল। তৃতীয় প্রজন্মের দ্রুতগতির নেটওয়ার্ক প্রযুক্তি থ্রিজি সমর্থিত হলেও ডিভাইসের র্যাম ছিল খুবই কম। সেলফি ক্যামেরাহীন ২ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরাসংবলিত ডিভাইসটিতে ভিডিও ধারণের কোনো সুযোগ ছিল না। ডিভাইসটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে সেকেলে ঘোষণা করেছে অ্যাপল।
    ম্যাকবুক প্রো ১৩ ইঞ্চি:
    ২০১১ সালের শুরুর দিকে অ্যাপল বৈশ্বিক বাজারে ১৩ ইঞ্চি ডিসপ্লের ম্যাকবুক প্রো ছেড়েছিল। ডিভাইসটি সে সময় ব্যাপক সাড়া ফেলে। এরপর ডিভাইসটির কয়েকটি হালনাগাদ সংস্করণ বাজারে ছাড়া হয়। ল্যাপটপ ডিভাইসটির হালনাগাদ সংস্করণে প্রযুক্তিগত উন্নয়নের পাশাপাশি ডিসপ্লের আকার বাড়ানো হয়। কার্যত আবেদন হারায় ম্যাকবুক প্রো ১৩ ইঞ্চি। কম্পিউটিং ডিভাইসটিকে এখন সেকেলে ঘোষণা দিয়ে সরবরাহ বন্ধ করা হয়েছে।
    আইপ্যাড থ্রিজি:
    ২০১০ সালের মার্চে ভয়েস কমিউনিকেশন সমর্থিত আইপ্যাড থ্রিজি বাজারে ছাড়ে অ্যাপল। ডিভাইসটিতে ৯ দশমিক ৭ ইঞ্চির আইপিএস এলসিডি ক্যাপাসিটিভ টাচস্ক্রিন ডিসপ্লে ছিল। ৭৩০ গ্রাম ওজনের ট্যাবলেট ডিভাসটিতে ওয়াই-ফাই ও থ্রিজি সংযোগ সুবিধা ছিল। এর কয়েকটি উন্নত সংস্করণ বাজারে আসায় ডিভাইসটি আনুষ্ঠানিকভাবে উৎপাদন বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে অ্যাপল।

    ভাগ