১৬ ডিসেম্বর কোটি টাকার ফুল বিক্রির আশা করছেন কালীগঞ্জের ফুলচাষিরা

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) সংবাদদাতা ॥ ফুল ভালোবাসে না এমন মানুষ কেউ নেই। তাই বছর জুড়েই কম বেশি চাহিদা থাকে। বর্তমানে ফুলের ভরা মৌসুম। ফুলের চাহিদাও রয়েছে প্রচুর। ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসে ফুলের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। দেশজুড়ে দিবসটি পালিত হবে। এ উপলে এবার কোটি টাকা ফুল বিক্রির আশা করছেন ঝিনাইদহের কালীগঞ্জের ফুলচাষিরা। কালীগঞ্জ উপজেলায় ফুল চাষে এবার নীরব বিপ্লব ঘটেছে। কৃষিকাজের পরিবর্তে ফুল চাষকে পেশা হিসেবে নিয়ে ভাগ্য পরিবর্তন করেছেন অনেক কৃষক। কালীগঞ্জ উপজেলার শতাধিক কৃষক এ ফুল চাষের সাথে জড়িত। এখানে উৎপাদিত গাঁদা ফুলের ওপর নির্ভর করতে হয় রাজধানীর শাহবাগের ফুলের বাজার, সিলেট, চট্রগ্রামসহ দেশের ফুল ব্যবসায়ীদের। দিন দিন এখানকার ফুলের চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঝিনাইদহ কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, জেলার ৬ উপজেলার প্রায় ২৫০ শ হেক্টর জমিতে নানা জাতের ফুল চাষ হয়েছে। সবচেয়ে বেশি ফুল চাষ হচ্ছে কালীগঞ্জ উপজলোর ফুলপলি নামে খ্যাত বেলেডাংগা, ত্রিলোচনপুর, কোলা ও নলডাংগাসহ বিভিন্ন গ্রামে। চলতি মৌসুমে এ উপজলোয় ফুল চাষ হয়েছে ১শ’ হেক্টর জমিতে। বেলেডাংগা গ্রামের ফুলচাষি মোতালেব হোসেন বলেন, এক বিঘা জমিতে ফুল চাষ করতে খরচ হয় ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা। ভালো দাম পেলে লাভ হয় প্রায় একলাখ টাকা। এ জন্য ফুলচাষের হার দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। কালীগঞ্জ কৃষি র্কমর্কতা জাহিদুল করিম বলেন, আমরা প্রতিনিয়ত কৃষকদের ফুল চাষ সর্ম্পকে প্রশণি দিয়ে থাকি। ফলে সঠিকভাবে ফুল চাষ করে লাভবান হচ্ছেন তারা। কালীগঞ্জ কৃষি কর্মকর্তা জাহিদুল করিম বলেন, এবার ফুল চাষে ব্যাপক সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। স্থানীয় ফুল বাজারগুলোতে প্রতিদিন বিপুল পরিমাণ ফুল বিক্রি হচ্ছে। যা রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ফুল বাজারের চাহিদা পূরণ করছে । অসময়ে ফুল সংরণের ব্যবস্থা করা হলে কৃষকরা ফুল চাষের মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনে বড় ধরনের ভূমিকা রাখতে পারবেন বলে মনে করেন ফুলচাষিরা।

ভাগ