হামলার শিকার শার্শার স্বতন্ত্র প্রার্থী বললেন, ফ্রি ফেয়ার নির্বাচন কতটুকু সম্ভব জানি না

0

 

বেনাপোল সংবাদদাতা॥ বেনাপোলে নির্বাচনী প্রচারণার সময় সাবেক মেয়র জেলা অওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফুল আলম লিটনের ওপর সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছেন তার ১০ জন কর্মী।
স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফুল আলম লিটন বলেন, মঙ্গলবার সকালে বেনাপোলের ছোটআঁচড়া গ্রামে নির্বাচনী প্রচারণায় গেলে নৌকা প্রার্থীর সমর্থকরা তার ওপর হামলা চালায়। এ সময় তার ১০ নেতা-কর্মী আহত হন। তিনি কৌশলে পাশের একটি বাড়িতে গিয়ে আশ্রয় নেন। তার বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে।
তিনি আরও বলেন, এ অবস্থায় আসলে যে ফ্রি ফেয়ার নির্বাচনের কথা বলছে তা সেটা কতটুকু সম্ভব জানি না। যে অবস্থা চলছে প্রতি ইউনিয়নে- এরকম হাতেগোনা ১০/১৫ জন সন্ত্রাসী আছে তারা প্রতি জায়গায় হুমকি দিচ্ছে। নেতা-কর্মীদের ভীত করার চেষ্টা করছে। আমি এই আসনে নিরপেক্ষ ভোট হওয়ার জন্যে প্রধান নির্বাচন কামশনারের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেলাল হোসাইন জানান, সকাল ১০টার দিকে বেনাপোল পোর্ট থানায় পোর্টেও পাশেই হ্যান্ডলিং শ্রমিকদের সাথে শার্শা উপজেলার যে স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফুল আলম লিটনের সমর্থকদের সাথে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। আমরা সংবাদ পাওয়ার সাথে সাথে পুলিশ উপস্থিত হয় এবং এখানে যিনি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তিনি উপস্থিত হন, সহকারী রিটার্নিং অফিসার উপস্থিত হন। ওই মুহূর্তে আমরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসি। এবং নির্বাচনের প্রচারণায় বাধা দেওয়ার কারণে তিন জনকে জরিমানা করা হয় ৫ হাজার টাকা করে।
জরিমানা করা শ্রমিকেরা হলেন শার্শার রঘুনাথপুর গ্রামের বাসিন্দা রশিদ মল্লিক, ছোট আঁচড়া গ্রামের রাজু সরদার ও বাবু সরদার। তারা বন্দরের হ্যান্ডলিং শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন।
এদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী যশোর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল আলম গণমাধ্যমে বলেন, ‘প্রার্থীর ওপরে হামলা হলো। আমিসহ ১০-১৫ জন কর্মী রক্তাক্ত জখম হলাম। সেখানে হামলাকারীদের কারাদ- না দিয়ে জরিমানা করা করে ভ্রাম্যমাণ আদালত দায় সারলেন। আমি মনে করি, জরিমানার চেয়ে এক মাসের কারাদ- দেওয়া জরুরি ছিল। এ বিষয়ে মামলা করতে গেলে বন্দর থানার ওসি মামলা গ্রহণ করেননি। জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দেওয়ার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।’
বেনাপোল বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুমন ভক্ত গণমাধ্যমকে বলেন, নির্বাচনী আচরণবিধি অনুযায়ী মোবাইল কোর্ট পরিচালনার বিধান রয়েছে। শার্শা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফারজানা ইসলামের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে হামলার সঙ্গে জড়িত অভিযোগে বন্দরের ৩ শ্রমিকের কাছ থেকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। একই ঘটনায় দুটি মামলা হওয়ার সুযোগ নেই। এরপরও কারও কোনো অভিযোগ থাকলে লিখিতভাবে জানালে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।
পরে হামলাকারীদের বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে স্বতন্ত্র পার্থীর লিটনের সমর্থকরা।
অন্যদিকে বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে নৌকার প্রার্থী শেখ আফিল উদ্দিনের সমর্থকরা পাল্টা বিক্ষোভ মিছিল করেছে বেনাপোল বাজারে।

 

Lab Scan