সেদিনের কথা ভুলব না, রিকশায় বসে অঝোরে কেঁদেছিলাম: নোরা

লোকসমাজ ডেস্ক॥ নোরা ফাতেহি। ‘সাকি সাকি’ গানের মাধ্যমেই তার জনপ্রিয়তা তুঙ্গে ওঠে। প্রথমে দিলবার দিলবার এবং সর্বশেষ গারমি গানে তার কোমর দোলানো দেখেছে বিশ্ববাসী। অভিনয় নয় নাচ দিয়েই যেন সবার মন কেড়েছেন বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় এই আইটেম কন্যা। তবে জানেন কি? তিনি কখনো নাচ কিংবা অভিনয় শেখেননি।
অবাক হওয়ার মতোই খবর এটি। নাচে পারদর্শী এই আইটেম কন্যা নাকি নাচ শেখেননি কেউই এ খবর বিশ্বাস করতে চাইবেন না। আর পাঁচটা সাধারণ মেয়ের মতোই রঙিন জগতে কাজ করতে অনেক ত্যাগ ও তিতিক্ষা সহ্য করতে হয়েছে তাকে। নিজ জন্মভূমি কানাডা ছেড়ে চলে এসেছেন মুম্বাইতে। একের পর এক অডিশন দিয়েছেন। একটি ফ্ল্যাটে মেয়েদের সঙ্গে রুম শেয়ারিং করে বসবাস করে জীবনযুদ্ধে লড়াই করেছেন। আরো অনেক কিছু। তবে জেনে নিন এই আইটেম কন্যার যাত্রা কীভাবে বলিউডে শুরু হয়েছিল?
জন আব্রাহামের বাটলা হাউস সিনেমার সেই সাকি সাকি গানে নোরার বেলি ড্যান্স দেখে মুগ্ধ হয়। এমনকি জনের শেষ ছবি সত্যমেব জয়তে সিনেমার দিলবার গান তুমুল জনপ্রিয় অর্জনের পর নোরাকে আর ফিরে তাকাতে হয়নি। তবে বলিউডে পা রাখতে অনেক সংগ্রাম করেছেন তিনি। নোরা বলেন, কানাডা থেকে মুম্বাইতে আসার জন্য যে অ্যাজেন্সিকে ধরেছিলাম তারা আমাকে আজ কাল করে ঘুরাচ্ছিল। অতঃপর আমি তাদের মাধ্যমে মুম্বাই যাব না বলার কারণে তারা আমার অগ্রিম দেয়া ২০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করে নেয়।
সাকি সাকি গানে নাচছেন নোরা
এদিকে পরিবারে টাকা চাওয়ার মতো তখন অবস্থা ছিল না। কারণ তারাও কেউ চাইত না আমি একা মুম্বাই গিয়ে থাকি। সেখানে তো আমার কেউ ছিল না। অতঃপর মুম্বাইতে আসার পর আটজন মেয়ের সঙ্গে একটি অ্যাপার্টমেন্ট শেয়ার করে থাকতাম। একে তো হিন্দি ঠিক মতো বলতে পারতাম না। বলিউডে পা দেয়ার স্বপ্ন পূরণের বড় বাঁধা ছিল এটি। সবাই বলত হিন্দি বলতে পারে না সে আবার বলিউডের নায়িকা হবে!
সাদা লেহেঙ্গায় নোরা
এরপর আমি হিন্দি শিখতে শুরু করি। মোটামুটি হিন্দি শিখে অডিশন দেয়া শুরু করি। আসলেই আমি অনেক বোকা ছিলাম। আর তাইতো অডিশনে গেলেও বুলিংয়ের শিকার হতাম। একের পর এক অডিশন দেয়ার পর আমি মানসিকভাবে আরো বিপর্যস্ত হয়ে পড়ি। একবার অডিশনে এক কাস্টিং এজেন্ট আমাকে বললেন, ‘এখানে আপনার মতো সুন্দরীর দরকার নেই, নিজ দেশে ফিরে যান’।
বোল্ড লুকে নোরা
নোরা বলেন, এই বিষয়টি আমি কখনোই ভুলব না। একে তো নিজের দেশ থেকে অন্য দেশে এসে নিজের স্বপ্ন পূরণে লড়াই করছি। আর এমন সময় মানুষের এই ব্যবহারে আমি মুষড়ে পড়ি। সেদিন অডিশনের পর আমি রিকশায় বসে কাঁদতে কাঁদতে বাড়ি ফিরেছিলাম। তবে সেদিনের অপমানই বোধ হয় আজকে আমাকে নোরা ফাতেহি হিসেবে বিশ্ব দরবারে পরিচয় করিয়ে দিয়েছে। কারণ আমি দমে যাইনি কখনো।
স্ট্রিট ড্যান্সার থ্রি সিনেমায় বরুণের সঙ্গে নোরা
নোরা কেবল পেশাগতভাবেই সমস্যার মুখোমুখি হননি পরিবার থেকেও কখনো এই অভিনেত্রী সহযোগীতা পাননি। ইন্ডিয়াটুডের এক সাক্ষাতকারে অভিনেত্রী বলেন, আমি অন্যান্যদের নাচ দেখে শিখেছি। কারণ আমি নাচতে ভালোবাসতাম। তবে কারো কাছে শেখার সুযোগ করে দেয়নি আমার পরিবার। আমি একটি রক্ষণশীল আরব পরিবার থেকে উঠে এসেছি। আমি নিজের ঘরে লুকিয়ে নাচ অনুশীলন করতাম।
নোরার স্বপ্ন আজ পূরণের পথে
সর্বশেষ নোরা ফাতেহি বরুণ ধাওয়ান ও শ্রদ্ধা কাপুরের সঙ্গে স্ট্রিট ডান্সার থ্রি-তে অভিনয় করেছেন। ছবিটি ২০২০ সালের ২৪ জানুয়ারি মুক্তি পেয়েছে। এই সিনেমায় কাজ করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটি আমার জন্য সত্যিই একটি দুর্দান্ত অভিজ্ঞতা ছিল। স্ট্রিট ড্যান্সিং যে কতটা কষ্টের তা বুঝেছি। আর নাচ বরাবরই সাধনার। যে যত সাধনা করবে সেই সেরা ড্যান্সার হবে। এই সিনেমার গানগুলো জন্য বেশ কষ্টসাধ্য সব নাচ তুলতে হয়েছিল। গানগুলো প্রকাশের পর থেকে বেশ বাহবা কুড়িয়েছি।

ভাগ